শীতে করো'নার শ'ঙ্কায় আগেভাগেই নামছে পর্যট'কের ঢল

দেশের প্রধান পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজারে পর্যট'কের ঢল নামতে শুরু করেছে। করো'নাকালীন সময়ে ঝিমিয়েপড়া পর্যটন স্পটগুলোতে নতুন করে ফিরছে চাঙ্গাভাব। আসন্ন শীতে নতুন করে করো'না সংক্রমণের কথা শুনেই ভ্রমণকারীদের মধ্যে আগেভাগে বেড়ানোর একটা ঢেউ লেগেছে। অন্তত: শীতের আগেই পর্যট'করা বেড়ানোর পালা শেষ করে ঘরে ঢুকতে চায়। হয়তোবা এবার আরো ক’দিন আগেই পর্যটন শিল্প জমে উঠত। কিন্তু এবারের শেষ বর্ষার টানা বৃষ্টিপাত ভ্রমণকারীদের চলমান পথকে কিছুটা হলেও ব্যাহত করেছে।

অন্যান্য বছরের অক্টোবর মাস থেকে এমনিতেই পর্যট'কের ঢল নামে কক্সবাজার সৈকতে। এ সময় প্রতিদিন সৈকতে ভিড় পরিলক্ষিত হত। কিন্তু এবার প্রতিদিন না হলেও সাপ্তাহিক ছুটির দিনেই বাড়ছে পর্যট'কের ভিড়। এমনকি শুক্রবার ও শনিবার সাগর পাড়ের হোটেলগুলোর কক্ষ প্রায় পুরোপুরি ভাড়া হয়ে যায়। মোহাম্ম'দ সোহেল নামের পর্যটন ব্যবসায়ী এ প্রসঙ্গে বলেন, তিনি ১০টি স্টুডিও ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করে থাকেন। সপ্তাহের অন্যান্য দিন এসব খালি থাকলেও গতকাল শুক্রবার তার সবগুলো ফ্ল্যাট ভাড়া হয়ে গেছে।

পর্যটন মৌসুম জমতে শুরু করায় ট্যুরিষ্ট পু'লিশও পর্যট'কদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সজাগ রয়েছে। কক্সবাজারে ট্যুরিষ্ট পু'লিশের পু'লিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমান জানান, ‘কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে পর্যট'কদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৮৩ জন ট্যুরিষ্ট পু'লিশের সদস্য সক্রিয় রয়েছেন। এ ছাড়াও সেন্ট মা'র্টিনস, ইনানীসহ অন্যান্য স্পটেও রয়েছে পর্যাপ্ত ফোর্স।’

সাগর পাড়ের হোটেল সী ওয়ার্ল্ডের জেনারেল ম্যানেজার (মহাব্যবস্থাপক) প্রদীপ চৌধুরী জানান-‘সপ্তাহের অন্যান্য দিন পর্যট'কের তেমন ভিড় না থাকলেও ছুটির দিনগুলোতে এখন পর্যট'ক আসছে। আমা'র হোটেলের অর্ধেকেরও বেশি কক্ষ আজ (গতকাল) সকাল পর্যন্ত সময়ে ভাড়া হয়ে গেছে।’

তিনি জানান, শীতে আবার করো'নার প্রকোপ বাড়ার আগাম সংকেত শুনে ভ্রমণকারীরা আগে ভাগেই ভ্রমণে বের হচ্ছেন। এখন যে সব ভ্রমণকারী হোটেলে উঠছেন তারাই নাকি বলছেন, ডিসেম্বর মাসেই তাদের বেড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু এ সময় করো'নার সংক্রমণের কথা শুনে তার আগেই ভ্রমণের কাজটি সারতে বেরিয়েছেন।

গতকাল শুক্রবার সকাল বেলায় সাগর পাড়ে দেখা গেছে, প্রচুর পর্যট'কের ভিড়। সেই সাত সকালেই অনেক পর্যট'ক সাগরে গোসল করতে নেমে পড়েছেন। সী সেইভ লাইফ গার্ডের উ'দ্ধারকর্মী সিফাত জানান, গত সপ্তাহ-দয়েক সময় ধরে দিন দিন পর্যট'কের সংখ্যা বাড়ছে। গত সপ্তাহের শুক্রবারের তুলনায় শুক্রবার ছুটির দিনে অন্তত দ্বিগুন বেড়েছে পর্যট'কের সংখ্যা। কক্সবাজার সাগর পাড়ের লাবণী পয়েন্ট, সুগন্ধা পয়েন্ট ও কলাতলী পয়েন্টে গতকাল সকাল থেকেই পর্যট'কে গিজ গিজ করছে।

এদিকে দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্ট মা'র্টিনসও পর্যট'কের আনাগোনা বেড়ে গেছে। কক্সবাজার শহরের বাঁকখালী নদী থেকে গত ১১ সেপ্টেম্বর দ্বীপে যাতায়াত শুরু করেছে পর্যট'কবাহী জাহাজ কর্ণফুলী। সেই জাহাজেও এখন পর্যট'ক যাত্রীর সংখ্যা বেড়েছে।

কর্ণফুলী জাহাজের পরিচালক বাহাদুর জানান, প্রতিদিন ২০০/৩০০ যাত্রী কক্সবাজার থেকে সরাসরি দ্বীপ ভ্রমণে যায়। তবে গতকাল শুক্রবার ছুটির দিন জাহাজটিতে সেই সংখ্যা দাঁড়ায় ৫ শতাধিকে।

অ'পরদিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ, ইনানী ও হিমছড়ি সৈকত, ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক, মহেশখালী, সোনাদিয়াসহ অন্যান্য পর্যটন স্পটগুলোতেও বাড়ছে পর্যট'কের সংখ্যা।

Back to top button

You cannot copy content of this page