ঢাকা ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

২২০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার প্রস্তুতি, ফরম বিক্রি ১৮৬টি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:১৪:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩ ৬৫ বার পড়া হয়েছে

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারা দেশে প্রায় ২২০টি আসনে প্রার্থী দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজনীতিতে নতুন নিবন্ধিত দল বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি (বিএসপি)। মঙ্গলবার পর্যন্ত তিন দিনে দলটির মোট ১৮৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে।

দলটির নেতারা বলছেন, সম্ভাব্য প্রার্থীদের একটি তালিকা করে আসন হিসাব করা হয়েছে। তালিকায় থাকা অনেকেই এখনো মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেননি। অনেকে আবার হরতাল-অবরোধের কারণে ঢাকা এসে ফরম সংগ্রহ করতে পারেননি। তাঁরা আশা করছেন, আগামী শুক্রবারের মধ্যেই বাকিরাও ফরম সংগ্রহ করবেন।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুর-১ নম্বরের শাহ আলীবাগ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বিএসপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে শামিয়ানা টাঙানো হয়েছে। সড়কের একপাশে সারি করে রাখা প্লাস্টিকের চেয়ার। অন্যপাশে দাঁড়িয়ে বাদ্য-বাজনা বাজাচ্ছেন ব্যান্ড পার্টির সদস্যরা। সেখানে নেতা-কর্মীদের কেউ চেয়ারে বসে, কেউ বা দাঁড়িয়ে হাততালি দিচ্ছেন।
কর্মী-সমর্থক কিংবা দলবল নিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশী কেউ ফরম সংগ্রহ করতে গেলেই বাদ্য-বাজনার শব্দ ও নেতা-কর্মীদের উচ্ছ্বাস বেড়ে যাচ্ছে। তাতে শামিল হচ্ছেন মনোনয়নপ্রত্যাশী ব্যক্তির সঙ্গে যাওয়া সমর্থকেরাও।

বিএসপির কার্যালয়ের নিচতলায় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা হচ্ছে। সেখান থেকে ফরম কিনে কোনো কোনো মনোনয়নপ্রত্যাশী দোতলায় দলটির চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন। কেউ আবার নিচে বসে থাকা দলের অন্য নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বসে শুভেচ্ছা বিনিময় করে গল্প-আড্ডা দিচ্ছেন।

বিএসপির দপ্তর থেকে জানানো হয়, গত রোববার থেকে তারা মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা শুরু করেছে। প্রথম দিন ১৩২টি ফরম বিক্রি হয়েছে। আর সোমবার ২০টি এবং মঙ্গলবার ৩৪টি ফরম বিক্রি হয়েছে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত (২৪ নভেম্বর) ফরম বিক্রি করা হবে।
জাতীয় নির্বাচনে এককভাবে প্রার্থী দেবেন না বলে জানিয়েছেন বিএসপি নেতারা। নির্বাচনে অংশ নিতে বিএসপি আরও পাঁচটি দলকে সঙ্গে নিয়ে একটি জোট করেছে। ছয়টি দলের ওই জোটের নাম লিবারেল ইসলামিক জোট। জোটটিতে বিএসপি ছাড়াও ন্যাপ ভাসানী, ইসলামি ঐক্যজোট, কৃষক শ্রমিক পার্টি, বাংলাদেশ জনদল ও আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্য পরিষদ রয়েছে।

এই জোট মিলে জাতীয় নির্বাচনে সব কটি অর্থাৎ ৩০০টি আসনেই প্রার্থী দেবে। ২২০টির মতো আসনে প্রার্থী দেবে বিএসপি। বাকি প্রার্থী নির্বাচন করা হবে জোটভুক্ত দলগুলো থেকে। জোটের নির্বাচনী প্রতীক একতারা। যেটি বিএসপিরও দলীয় প্রতীক। জোটের সমন্বয়ক হিসেবে ফারহনাজ হক চৌধুরী এবং কো-চেয়ারম্যান হাশরত খান ভাসানী দায়িত্ব পালন করছেন।
নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএসপির চেয়ারম্যান শাহ্জাদা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা বিষয়টি অবলোকন করছি। যদিও তফসিল ঘোষণা হয়ে গেছে। একটি একটু পেছালে আরও ভালো হতো। অনেকের হয়তো আসার সুযোগ তৈরি হতে পারত।’

তফসিলে ঘোষিত তারিখেই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে জানিয়ে বিএসপির চেয়ারম্যান বলেন, ‘দিনতো সামনে আছে। আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। শেষ পর্যন্ত আমরা দেখব। পরিবেশ পরিস্থিতির ওপরে নির্বাচনে চূড়ান্তভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়টি নির্ভর করবে। অংশ নেব কি না, সেটা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দেখা হবে। জনগণ ও জনমতের বাইরে আমরা যাব না।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

২২০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার প্রস্তুতি, ফরম বিক্রি ১৮৬টি

আপডেট সময় : ০৮:১৪:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারা দেশে প্রায় ২২০টি আসনে প্রার্থী দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজনীতিতে নতুন নিবন্ধিত দল বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টি (বিএসপি)। মঙ্গলবার পর্যন্ত তিন দিনে দলটির মোট ১৮৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে।

দলটির নেতারা বলছেন, সম্ভাব্য প্রার্থীদের একটি তালিকা করে আসন হিসাব করা হয়েছে। তালিকায় থাকা অনেকেই এখনো মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেননি। অনেকে আবার হরতাল-অবরোধের কারণে ঢাকা এসে ফরম সংগ্রহ করতে পারেননি। তাঁরা আশা করছেন, আগামী শুক্রবারের মধ্যেই বাকিরাও ফরম সংগ্রহ করবেন।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুর-১ নম্বরের শাহ আলীবাগ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বিএসপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে শামিয়ানা টাঙানো হয়েছে। সড়কের একপাশে সারি করে রাখা প্লাস্টিকের চেয়ার। অন্যপাশে দাঁড়িয়ে বাদ্য-বাজনা বাজাচ্ছেন ব্যান্ড পার্টির সদস্যরা। সেখানে নেতা-কর্মীদের কেউ চেয়ারে বসে, কেউ বা দাঁড়িয়ে হাততালি দিচ্ছেন।
কর্মী-সমর্থক কিংবা দলবল নিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশী কেউ ফরম সংগ্রহ করতে গেলেই বাদ্য-বাজনার শব্দ ও নেতা-কর্মীদের উচ্ছ্বাস বেড়ে যাচ্ছে। তাতে শামিল হচ্ছেন মনোনয়নপ্রত্যাশী ব্যক্তির সঙ্গে যাওয়া সমর্থকেরাও।

বিএসপির কার্যালয়ের নিচতলায় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা হচ্ছে। সেখান থেকে ফরম কিনে কোনো কোনো মনোনয়নপ্রত্যাশী দোতলায় দলটির চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন। কেউ আবার নিচে বসে থাকা দলের অন্য নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বসে শুভেচ্ছা বিনিময় করে গল্প-আড্ডা দিচ্ছেন।

বিএসপির দপ্তর থেকে জানানো হয়, গত রোববার থেকে তারা মনোনয়ন ফরম বিক্রি করা শুরু করেছে। প্রথম দিন ১৩২টি ফরম বিক্রি হয়েছে। আর সোমবার ২০টি এবং মঙ্গলবার ৩৪টি ফরম বিক্রি হয়েছে। আগামী শুক্রবার পর্যন্ত (২৪ নভেম্বর) ফরম বিক্রি করা হবে।
জাতীয় নির্বাচনে এককভাবে প্রার্থী দেবেন না বলে জানিয়েছেন বিএসপি নেতারা। নির্বাচনে অংশ নিতে বিএসপি আরও পাঁচটি দলকে সঙ্গে নিয়ে একটি জোট করেছে। ছয়টি দলের ওই জোটের নাম লিবারেল ইসলামিক জোট। জোটটিতে বিএসপি ছাড়াও ন্যাপ ভাসানী, ইসলামি ঐক্যজোট, কৃষক শ্রমিক পার্টি, বাংলাদেশ জনদল ও আশিক্কীনে আউলিয়া ঐক্য পরিষদ রয়েছে।

এই জোট মিলে জাতীয় নির্বাচনে সব কটি অর্থাৎ ৩০০টি আসনেই প্রার্থী দেবে। ২২০টির মতো আসনে প্রার্থী দেবে বিএসপি। বাকি প্রার্থী নির্বাচন করা হবে জোটভুক্ত দলগুলো থেকে। জোটের নির্বাচনী প্রতীক একতারা। যেটি বিএসপিরও দলীয় প্রতীক। জোটের সমন্বয়ক হিসেবে ফারহনাজ হক চৌধুরী এবং কো-চেয়ারম্যান হাশরত খান ভাসানী দায়িত্ব পালন করছেন।
নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএসপির চেয়ারম্যান শাহ্জাদা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা বিষয়টি অবলোকন করছি। যদিও তফসিল ঘোষণা হয়ে গেছে। একটি একটু পেছালে আরও ভালো হতো। অনেকের হয়তো আসার সুযোগ তৈরি হতে পারত।’

তফসিলে ঘোষিত তারিখেই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে জানিয়ে বিএসপির চেয়ারম্যান বলেন, ‘দিনতো সামনে আছে। আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। শেষ পর্যন্ত আমরা দেখব। পরিবেশ পরিস্থিতির ওপরে নির্বাচনে চূড়ান্তভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়টি নির্ভর করবে। অংশ নেব কি না, সেটা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দেখা হবে। জনগণ ও জনমতের বাইরে আমরা যাব না।’