ঢাকা ০১:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

হরতালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত, স্থবির প্রশাসনিক কার্যক্রমও

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১৩:৫৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২৩ ১৫৮ বার পড়া হয়েছে

বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর ডাকা সারা দেশে হরতালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। হরতালে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কোনো বাস ক্যাম্পাস থেকে ছেড়ে যায়নি। এ কারণে প্রশাসনিক কার্যক্রমেও স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

হরতালের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস চলাচল বন্ধ রাখলেও কর্তৃপক্ষ দাপ্তরিকভাবে (অফিশিয়ালি) বন্ধ ঘোষণা করেনি। ক্লাস-পরীক্ষা হবে কি না, এ ব্যাপারে আলাদা করে বিভাগকে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে। আজ সকাল দশটা পর্যন্ত পাঁচটি বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত করার খবর পাওয়া গেছে। বিভাগগুলো হলে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, রাজনীতিবিজ্ঞান, সমাজতত্ত্ব, ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি।
অন্যদিকে, বাস চলাচল না করলে শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম শাটল ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। ট্রেনটি নগরের বটতলী থেকে ক্যাম্পাস অভিমুখে দিনে সাতবার যাওয়া–আসা করে। এতে দৈনিক ১০ হাজার শিক্ষার্থী যাতায়াত করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নূর আহমদ আজ রোববার সকালে প্রথম আলোকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় অফিশিয়ালি বন্ধ হয়নি, তবে স্থবির রয়েছে। পরীক্ষা আর ক্লাস হবে কি না, এটা বিভাগ আলাদাভাবে সিদ্ধান্ত নেবে।
পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক চৌধুরী আমীর মোহাম্মদ মুছা প্রথম আলোকে বলেন, বিভাগের সভাপতি, হরতালের কারণে বাস না চলাচল করায় ছাত্র-শিক্ষক অনেকেই ক্যাম্পাসে আসতে পারেনি। প্রশাসনের উচ্চপদস্থ অনেক কর্মকর্তাও ক্যাম্পাসে আসতে পারেনি। তাই পরীক্ষা নেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

হরতালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত, স্থবির প্রশাসনিক কার্যক্রমও

আপডেট সময় : ১১:১৩:৫৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২৩

বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর ডাকা সারা দেশে হরতালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। হরতালে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কোনো বাস ক্যাম্পাস থেকে ছেড়ে যায়নি। এ কারণে প্রশাসনিক কার্যক্রমেও স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

হরতালের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস চলাচল বন্ধ রাখলেও কর্তৃপক্ষ দাপ্তরিকভাবে (অফিশিয়ালি) বন্ধ ঘোষণা করেনি। ক্লাস-পরীক্ষা হবে কি না, এ ব্যাপারে আলাদা করে বিভাগকে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে। আজ সকাল দশটা পর্যন্ত পাঁচটি বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত করার খবর পাওয়া গেছে। বিভাগগুলো হলে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, রাজনীতিবিজ্ঞান, সমাজতত্ত্ব, ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি।
অন্যদিকে, বাস চলাচল না করলে শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম শাটল ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। ট্রেনটি নগরের বটতলী থেকে ক্যাম্পাস অভিমুখে দিনে সাতবার যাওয়া–আসা করে। এতে দৈনিক ১০ হাজার শিক্ষার্থী যাতায়াত করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নূর আহমদ আজ রোববার সকালে প্রথম আলোকে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় অফিশিয়ালি বন্ধ হয়নি, তবে স্থবির রয়েছে। পরীক্ষা আর ক্লাস হবে কি না, এটা বিভাগ আলাদাভাবে সিদ্ধান্ত নেবে।
পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক চৌধুরী আমীর মোহাম্মদ মুছা প্রথম আলোকে বলেন, বিভাগের সভাপতি, হরতালের কারণে বাস না চলাচল করায় ছাত্র-শিক্ষক অনেকেই ক্যাম্পাসে আসতে পারেনি। প্রশাসনের উচ্চপদস্থ অনেক কর্মকর্তাও ক্যাম্পাসে আসতে পারেনি। তাই পরীক্ষা নেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না।