ঢাকা ০৫:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

সিরিয়া ও ইরাকে ইরানি লক্ষ্যবস্তুতে হামলার পরিকল্পনা পাস করেছে যুক্তরাষ্ট্র

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:১১:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৪৩ বার পড়া হয়েছে

সিরিয়া এবং ইরাকে থাকা ইরানি বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে ধারাবাহিক হামলার পরিকল্পনার অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিবিসির যুক্তরাষ্ট্রের পার্টনার সিবিএস নিউজকে এ কথা জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা।

কর্মকর্তারা জানান, কয়েক দিন ধরে এই হামলা চালানো হবে। কখন কখন হামলা চালানো হবে তা আবহাওয়া পরিস্থিতির উপর নির্ভর করবে বলেও জানানো হয়।

গত রবিবার সিরিয়ার সীমান্তের কাছে জর্ডানে একটি ড্রোন হামলায় তিন জন মার্কিন সেনা নিহত হওয়ার পর এই পদক্ষেপ নিলো যুক্তরাষ্ট্র।

এই হামলার জন্য ইরান সমর্থিত একটি সশস্ত্র গোষ্ঠীকে দায়ী করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইসলামিক রেজিস্ট্যান্স ইন ইরাক নামে পরিচিতি ওই গোষ্ঠীটিতে এমন কিছু সশস্ত্র যোদ্ধা রয়েছে যাদেরকে অস্ত্র, তহবিল ও প্রশিক্ষণ দিয়েছে ইরানের প্রতিরক্ষাবাহিনী রেভোলিউশনারি গার্ডস ফোর্স। ধারণা করা হয় যে, রবিবারের হামলার পেছনে এই গোষ্ঠীর হাত ছিল।

এরইমধ্যে হামলার জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইরান। টাওয়ার ২২ নামে পরিচিতি ওই সামরিক ঘাঁটিতে হামলার ফলে আরো ৪১ জন মার্কিন সেনা আহত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, মার্কিন গোয়েন্দারা বিশ্বাস করে যে, সামরিক ঘাঁটিতে হামলায় যে ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছিল তা ইরানেই তৈরি করা এবং ইউক্রেনে হামলার চালানোর উদ্দেশ্যে রাশিয়ায় ইরান যে ড্রোন পাঠিয়েছে তার সাথে এর মিল রয়েছে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লইড অস্টিন বিলম্বিত সামরিক পদক্ষেপ নেয়ার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে বলেন, “আমরা যেখানে, যখন এবং যেভাবে চাই, সেভাবেই পাল্টা পদক্ষেপ নেবো।”

“প্রকৃত দায়ী ব্যক্তিকে জবাবদিহিতার আওতায় আনাটা নিশ্চিত করতে হবে, এ সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জগুলোর বিষয়ে সবাই জানেন বলে আমি মনে করি”, বলেন মি. অস্টিন। সাথে যুক্ত করেন, “এটি নিশ্চিত করার জন্য সুনির্দিষ্ট কোনো সূত্র বা নিয়ম নেই।”

“এটি যেন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে না যায় সেজন্য অনেকগুলো উপায় আছে। আর আমরা সেটার উপরই গুরুত্ব দিয়ে আসছি”, বলেন মি. অস্টিন।

সিবিএস নিউজের সাথে যে কর্মকর্তারা কথা বলেছেন তারা হামলার সম্ভাব্য সময়সীমা সম্পর্কে স্পষ্টভাবে কিছু জানাননি।

শুধু জানিয়েছেন যে, মার্কিন সামরিক বাহিনী খারাপ আবহাওয়ার সময় এই হামলা চালাতে পারে। তবে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর যাতে হামলার ঝুঁকি এড়ানো যায় এবং সেজন্য প্রয়োজনীয় স্পষ্ট দৃষ্টিসীমা যাতে থাকে সে বিষয়েও নজর রাখা হবে।

ইরানের মাটিতে থাকা লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানোর জন্য প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ওপর রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের চাপ রয়েছে। এরমধ্যে ওয়াশিংটনে থাকা ইরানের কট্টর সমালোচকরাও রয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র বার বার ড্রোন হামলার জবাব দেয়ার কথা বলে আসলেও মি. বাইডেন এবং তার অন্য প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা বলেছেন, ইরানের সাথে বড় কোনো যুদ্ধে জড়াতে বা ওই এলাকায় উত্তেজনা আরো বাড়াতে চায় না ওয়াশিংটন।

“আমি এটা চাইছিলাম না”, চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের একথা বলেন মি. বাইডেন।

অনুমোদন পাওয়া পরিকল্পনা অনুযায়ী, ইরানের যে লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো হবে সেগুলো সিরিয়া এবং ইরাকে অবস্থিত হবে, ইরানের নিজস্ব ভূখণ্ডের মধ্যে নয়।

গত সাতই অক্টোবর ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে ইরান সমর্থিত বেশ কয়েকটি গোষ্ঠী যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের সাথে সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানের ওপর হামলা বাড়িয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ইরান সমর্থিত ইয়েমেনের হুথিরা লোহিত সাগর এবং এডেন উপসাগরে জাহাজে হামলা চালিয়েছে। যার জবাবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা পাল্টা হামলা চালিয়েছে।

মার্কিন এক প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা সিবিএসকে বলেছেন, গত রাতে এডেন উপসাগরে একটি ড্রোনকে গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে। এছাড়া লোহিত সাগরে আরোহী বিহীন একটি সামুদ্রিক ড্রোনকে আঘাত করে ধ্বংস করা হয়েছে।

অসমর্থিত সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বৃহস্পতিবার জানায়, ইসরায়েলের ধারাবাহিক বিমান হামলার পর সিরিয়া থেকে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নিয়েছে ইরান। যাতে করে ওই এলাকায় একটি বড় দ্বন্দ্বে সরাসরি জড়িয়ে পড়া ঠেকানো যায়।

মার্কিন কর্মকর্তারা চলতি সপ্তাহে সিএনএনকে জানিয়েছেন, ওই এলাকায় ছায়া গোষ্ঠীগুলোর কর্মকাণ্ডের বিষয়ে ক্রমে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছে ইরানি সরকার। এই গোষ্ঠীগুলো গত অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত মার্কিন বাহিনীর উপর ১৬০টি হামলা চালিয়েছে।

জর্ডানে হামলায় নিহত তিন মার্কিন সেনার মরদেহ শুক্রবার ডেলাওয়ার বিমান ঘাঁটিতে পাঠানো হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট বাইডেন সেখানে উপস্থিত থাকবেন বলে হোয়াইট হাউজ ঘোষণা দিয়েছে।

নিহত তিন সেনা হলেন ৪৬ বছর বয়সী উইলিয়াম জেরমি রিভার্স, ২৪ বছর বয়সী কেনেডি ল্যাডন স্যান্ডার্স এবং ২৩ বছর বয়সী ব্রিয়ন্না অ্যালেক্সান্দ্রিয়া মফেট। এই তিন জনই জর্জিয়ার ফোর্ট মুর ঘাঁটির সংরক্ষিত ইউনিটের সেনা ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সিরিয়া ও ইরাকে ইরানি লক্ষ্যবস্তুতে হামলার পরিকল্পনা পাস করেছে যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট সময় : ১১:১১:৩০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সিরিয়া এবং ইরাকে থাকা ইরানি বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে ধারাবাহিক হামলার পরিকল্পনার অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিবিসির যুক্তরাষ্ট্রের পার্টনার সিবিএস নিউজকে এ কথা জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা।

কর্মকর্তারা জানান, কয়েক দিন ধরে এই হামলা চালানো হবে। কখন কখন হামলা চালানো হবে তা আবহাওয়া পরিস্থিতির উপর নির্ভর করবে বলেও জানানো হয়।

গত রবিবার সিরিয়ার সীমান্তের কাছে জর্ডানে একটি ড্রোন হামলায় তিন জন মার্কিন সেনা নিহত হওয়ার পর এই পদক্ষেপ নিলো যুক্তরাষ্ট্র।

এই হামলার জন্য ইরান সমর্থিত একটি সশস্ত্র গোষ্ঠীকে দায়ী করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইসলামিক রেজিস্ট্যান্স ইন ইরাক নামে পরিচিতি ওই গোষ্ঠীটিতে এমন কিছু সশস্ত্র যোদ্ধা রয়েছে যাদেরকে অস্ত্র, তহবিল ও প্রশিক্ষণ দিয়েছে ইরানের প্রতিরক্ষাবাহিনী রেভোলিউশনারি গার্ডস ফোর্স। ধারণা করা হয় যে, রবিবারের হামলার পেছনে এই গোষ্ঠীর হাত ছিল।

এরইমধ্যে হামলার জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইরান। টাওয়ার ২২ নামে পরিচিতি ওই সামরিক ঘাঁটিতে হামলার ফলে আরো ৪১ জন মার্কিন সেনা আহত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, মার্কিন গোয়েন্দারা বিশ্বাস করে যে, সামরিক ঘাঁটিতে হামলায় যে ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছিল তা ইরানেই তৈরি করা এবং ইউক্রেনে হামলার চালানোর উদ্দেশ্যে রাশিয়ায় ইরান যে ড্রোন পাঠিয়েছে তার সাথে এর মিল রয়েছে।

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লইড অস্টিন বিলম্বিত সামরিক পদক্ষেপ নেয়ার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে বলেন, “আমরা যেখানে, যখন এবং যেভাবে চাই, সেভাবেই পাল্টা পদক্ষেপ নেবো।”

“প্রকৃত দায়ী ব্যক্তিকে জবাবদিহিতার আওতায় আনাটা নিশ্চিত করতে হবে, এ সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জগুলোর বিষয়ে সবাই জানেন বলে আমি মনে করি”, বলেন মি. অস্টিন। সাথে যুক্ত করেন, “এটি নিশ্চিত করার জন্য সুনির্দিষ্ট কোনো সূত্র বা নিয়ম নেই।”

“এটি যেন নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে না যায় সেজন্য অনেকগুলো উপায় আছে। আর আমরা সেটার উপরই গুরুত্ব দিয়ে আসছি”, বলেন মি. অস্টিন।

সিবিএস নিউজের সাথে যে কর্মকর্তারা কথা বলেছেন তারা হামলার সম্ভাব্য সময়সীমা সম্পর্কে স্পষ্টভাবে কিছু জানাননি।

শুধু জানিয়েছেন যে, মার্কিন সামরিক বাহিনী খারাপ আবহাওয়ার সময় এই হামলা চালাতে পারে। তবে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর যাতে হামলার ঝুঁকি এড়ানো যায় এবং সেজন্য প্রয়োজনীয় স্পষ্ট দৃষ্টিসীমা যাতে থাকে সে বিষয়েও নজর রাখা হবে।

ইরানের মাটিতে থাকা লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানোর জন্য প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ওপর রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের চাপ রয়েছে। এরমধ্যে ওয়াশিংটনে থাকা ইরানের কট্টর সমালোচকরাও রয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্র বার বার ড্রোন হামলার জবাব দেয়ার কথা বলে আসলেও মি. বাইডেন এবং তার অন্য প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা বলেছেন, ইরানের সাথে বড় কোনো যুদ্ধে জড়াতে বা ওই এলাকায় উত্তেজনা আরো বাড়াতে চায় না ওয়াশিংটন।

“আমি এটা চাইছিলাম না”, চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের একথা বলেন মি. বাইডেন।

অনুমোদন পাওয়া পরিকল্পনা অনুযায়ী, ইরানের যে লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো হবে সেগুলো সিরিয়া এবং ইরাকে অবস্থিত হবে, ইরানের নিজস্ব ভূখণ্ডের মধ্যে নয়।

গত সাতই অক্টোবর ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে ইরান সমর্থিত বেশ কয়েকটি গোষ্ঠী যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের সাথে সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানের ওপর হামলা বাড়িয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ইরান সমর্থিত ইয়েমেনের হুথিরা লোহিত সাগর এবং এডেন উপসাগরে জাহাজে হামলা চালিয়েছে। যার জবাবে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা পাল্টা হামলা চালিয়েছে।

মার্কিন এক প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা সিবিএসকে বলেছেন, গত রাতে এডেন উপসাগরে একটি ড্রোনকে গুলি করে ভূপাতিত করা হয়েছে। এছাড়া লোহিত সাগরে আরোহী বিহীন একটি সামুদ্রিক ড্রোনকে আঘাত করে ধ্বংস করা হয়েছে।

অসমর্থিত সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বৃহস্পতিবার জানায়, ইসরায়েলের ধারাবাহিক বিমান হামলার পর সিরিয়া থেকে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নিয়েছে ইরান। যাতে করে ওই এলাকায় একটি বড় দ্বন্দ্বে সরাসরি জড়িয়ে পড়া ঠেকানো যায়।

মার্কিন কর্মকর্তারা চলতি সপ্তাহে সিএনএনকে জানিয়েছেন, ওই এলাকায় ছায়া গোষ্ঠীগুলোর কর্মকাণ্ডের বিষয়ে ক্রমে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছে ইরানি সরকার। এই গোষ্ঠীগুলো গত অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত মার্কিন বাহিনীর উপর ১৬০টি হামলা চালিয়েছে।

জর্ডানে হামলায় নিহত তিন মার্কিন সেনার মরদেহ শুক্রবার ডেলাওয়ার বিমান ঘাঁটিতে পাঠানো হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট বাইডেন সেখানে উপস্থিত থাকবেন বলে হোয়াইট হাউজ ঘোষণা দিয়েছে।

নিহত তিন সেনা হলেন ৪৬ বছর বয়সী উইলিয়াম জেরমি রিভার্স, ২৪ বছর বয়সী কেনেডি ল্যাডন স্যান্ডার্স এবং ২৩ বছর বয়সী ব্রিয়ন্না অ্যালেক্সান্দ্রিয়া মফেট। এই তিন জনই জর্জিয়ার ফোর্ট মুর ঘাঁটির সংরক্ষিত ইউনিটের সেনা ছিলেন।