ঢাকা ১২:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

সিপিডির মজুরি প্রস্তাবের বিরোধিতা আইবিসির

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৩৮:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০২৩ ৬৮ বার পড়া হয়েছে

তৈরি পোশাকশ্রমিকদের জন্য বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) ১৭ হাজার ৫৬৮ টাকার নিম্নতম মজুরি প্রস্তাবের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে শ্রমিক সংগঠন ইন্ডাস্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি)।
আইবিসির সভাপতি আমিরুল হক ও সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন আহম্মেদ এক যৌথ বিবৃতিতে গতকাল সোমবার এই প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আইবিসি বলছে, সিপিডির প্রস্তাব অনাকাঙ্ক্ষিত, অযৌক্তিক ও এখতিয়ারবহির্ভূত। সিপিডি এমন প্রস্তাবনা দেওয়ার আগে আইবিসি বা পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্বকারী শ্রমিক সংগঠনের সঙ্গে কোনো আলোচনা করা হয়েছে বা তাদের মতামত প্রতিফলিত হয়েছে বলে প্রতীয়মান হয় না।
বিবৃতিতে বলা হয়, তৈরি পোশাক খাতের ১৯টি শ্রমিক ফেডারেশন আইবিসি শ্রমিকদের জন্য ২৩ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরি নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে। যৌক্তিক তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এমন প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়, সিপিডির প্রস্তাব পোশাকশ্রমিকদের স্বার্থের পরিপন্থী, যা সংগতভাবেই মালিকপক্ষের স্বার্থকে সমর্থন করবে।
পোশাকশ্রমিকদের জন্য সিপিডির ১৭ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকার প্রস্তাব প্রত্যাহারের দাবি জানায় আইবিসি। একই সঙ্গে ২৩ হাজার টাকা মজুরি নির্ধারণে আইবিসির দাবি পর্যালোচনা করে সেটিকে সমর্থন দিতে সিপিডির প্রতি অনুরোধ করেছে তারা।
বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে একটি শ্রমিক পরিবারের প্রয়োজনীয় খাবার খরচ মাসে ১৬ হাজার ৫২৯ টাকা। আর খাদ্য-বহির্ভূত খরচ ১২ হাজার ৮৮২ টাকা। একেকটি শ্রমিক পরিবারের গড় সদস্যসংখ্যা ৩ দশমিক ৭। তার মধ্যে উপার্জনক্ষম সদস্য ২। সেই হিসাবে শ্রমিকের মাসিক নিম্নতম মজুরি ১৭ হাজার ৫৬৮ টাকা হওয়া দরকার বলে প্রস্তাব করেছে সিপিডি।

গত রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সিপিডি তাদের এই প্রস্তাব তুলে ধরে। সংস্থাটি সর্বনিম্ন গ্রেডের জন্য সাড়ে ১৭ হাজার টাকা মজুরির প্রস্তাব করে, যার ৫৫ শতাংশ মূল মজুরি এবং মূল মজুরির ৫০ শতাংশ বাড়িভাড়া। এ ছাড়া মোট মজুরির ৭ শতাংশ খাদ্য ভাতা, ৫ শতাংশ চিকিৎসা ভাতা, সাড়ে ৩ শতাংশ যাতায়াত ভাতা ও সন্তান লালন-পালনের জন্য ২ শতাংশ ভাতার প্রস্তাব করেছে। পাশাপাশি ৫ ও ৬ নম্বর গ্রেডকে একীভূত করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে।

সিপিডি মনে করে, বিদেশি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান যদি প্রতি পিস পোশাকের জন্য মূল্য হিসাবে অতিরিক্ত ৭ সেন্ট করে দেয়, তাহলে বাড়তি মজুরি দিতে কারখানার মালিকদের ওপর চাপ পড়বে না।
তৈরি পোশাক খাতে বর্তমানে নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা। পোশাকশ্রমিকদের মজুরি পুনর্নির্ধারণে ছয় মাস আগে নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠিত হয়। ইতিমধ্যে এই বোর্ডের তিনটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত শ্রমিক বা মালিক কোনো পক্ষই মজুরি প্রস্তাব দেয়নি। ফলে নতুন করে মজুরি বোর্ডের সময় বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সিপিডির মজুরি প্রস্তাবের বিরোধিতা আইবিসির

আপডেট সময় : ০১:৩৮:১৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর ২০২৩

তৈরি পোশাকশ্রমিকদের জন্য বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) ১৭ হাজার ৫৬৮ টাকার নিম্নতম মজুরি প্রস্তাবের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে শ্রমিক সংগঠন ইন্ডাস্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি)।
আইবিসির সভাপতি আমিরুল হক ও সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন আহম্মেদ এক যৌথ বিবৃতিতে গতকাল সোমবার এই প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আইবিসি বলছে, সিপিডির প্রস্তাব অনাকাঙ্ক্ষিত, অযৌক্তিক ও এখতিয়ারবহির্ভূত। সিপিডি এমন প্রস্তাবনা দেওয়ার আগে আইবিসি বা পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্বকারী শ্রমিক সংগঠনের সঙ্গে কোনো আলোচনা করা হয়েছে বা তাদের মতামত প্রতিফলিত হয়েছে বলে প্রতীয়মান হয় না।
বিবৃতিতে বলা হয়, তৈরি পোশাক খাতের ১৯টি শ্রমিক ফেডারেশন আইবিসি শ্রমিকদের জন্য ২৩ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরি নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে। যৌক্তিক তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এমন প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়, সিপিডির প্রস্তাব পোশাকশ্রমিকদের স্বার্থের পরিপন্থী, যা সংগতভাবেই মালিকপক্ষের স্বার্থকে সমর্থন করবে।
পোশাকশ্রমিকদের জন্য সিপিডির ১৭ হাজার ৫৬৮ কোটি টাকার প্রস্তাব প্রত্যাহারের দাবি জানায় আইবিসি। একই সঙ্গে ২৩ হাজার টাকা মজুরি নির্ধারণে আইবিসির দাবি পর্যালোচনা করে সেটিকে সমর্থন দিতে সিপিডির প্রতি অনুরোধ করেছে তারা।
বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে একটি শ্রমিক পরিবারের প্রয়োজনীয় খাবার খরচ মাসে ১৬ হাজার ৫২৯ টাকা। আর খাদ্য-বহির্ভূত খরচ ১২ হাজার ৮৮২ টাকা। একেকটি শ্রমিক পরিবারের গড় সদস্যসংখ্যা ৩ দশমিক ৭। তার মধ্যে উপার্জনক্ষম সদস্য ২। সেই হিসাবে শ্রমিকের মাসিক নিম্নতম মজুরি ১৭ হাজার ৫৬৮ টাকা হওয়া দরকার বলে প্রস্তাব করেছে সিপিডি।

গত রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সিপিডি তাদের এই প্রস্তাব তুলে ধরে। সংস্থাটি সর্বনিম্ন গ্রেডের জন্য সাড়ে ১৭ হাজার টাকা মজুরির প্রস্তাব করে, যার ৫৫ শতাংশ মূল মজুরি এবং মূল মজুরির ৫০ শতাংশ বাড়িভাড়া। এ ছাড়া মোট মজুরির ৭ শতাংশ খাদ্য ভাতা, ৫ শতাংশ চিকিৎসা ভাতা, সাড়ে ৩ শতাংশ যাতায়াত ভাতা ও সন্তান লালন-পালনের জন্য ২ শতাংশ ভাতার প্রস্তাব করেছে। পাশাপাশি ৫ ও ৬ নম্বর গ্রেডকে একীভূত করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে।

সিপিডি মনে করে, বিদেশি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান যদি প্রতি পিস পোশাকের জন্য মূল্য হিসাবে অতিরিক্ত ৭ সেন্ট করে দেয়, তাহলে বাড়তি মজুরি দিতে কারখানার মালিকদের ওপর চাপ পড়বে না।
তৈরি পোশাক খাতে বর্তমানে নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা। পোশাকশ্রমিকদের মজুরি পুনর্নির্ধারণে ছয় মাস আগে নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠিত হয়। ইতিমধ্যে এই বোর্ডের তিনটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত শ্রমিক বা মালিক কোনো পক্ষই মজুরি প্রস্তাব দেয়নি। ফলে নতুন করে মজুরি বোর্ডের সময় বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে।