ঢাকা ১০:২৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

সাগরতলে ‘সোনার ডিম

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৩:২৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৫২ বার পড়া হয়েছে

সোনার ডিম! ছেলেবেলায় রূপকথার গল্পে এমন ডিমের কথা আমরা অহরহ শুনেছি। এবার কল্পনার সেই জগৎ পেরিয়ে ‘সোনার ডিমের’ মতোই একটি বস্তুর সন্ধান পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা। তা-ও আবার সাগরের তলদেশে। তবে সেটি আসলে কী, তা এখনো নিশ্চিত করে কেউ জানেন না।

রহস্যময় ওই বস্তু পাওয়া গেছে যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কা অঙ্গরাজ্যে সাগরের প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মিটার (সাড়ে ৩ কিলোমিটার) নিচে। গত ৩০ আগস্ট সাগরের তলদেশের জীবজগৎ নিয়ে গবেষণার সময় বিজ্ঞানীদের নজরে পড়ে বস্তুটি। সোনালি রঙের ডিম্বাকৃতির এ বস্তুর ব্যাস ৪ ইঞ্চি। এর গোড়ার দিকে একটি ছোট ফাটল রয়েছে।

‘ডিমটির’ সন্ধান পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশানিক অ্যান্ড অ্যাটমোসফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এনওএএ)। তারা জানিয়েছে, সাগরের তলদেশে বস্তুটির দিকে যখন ক্যামেরা নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন এটির পরিচয় শনাক্ত করতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা ধন্দে পড়ে গিয়েছিলেন। প্রথমে মনে হচ্ছিল, সেটি কোনো মৃত স্পঞ্জ বা কোরাল। বস্তুটি যেন রূপকথার গল্পের মতোই কোনো কিছু। তাই এটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সোনার ডিম’।

এদিকে বস্তুটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও চলছে গুঞ্জন। অনেকে বলছেন, এটি হয়তো ভিনদেশি কোনো প্রাণীর ডিম! এটি আসলেই কী, তা জানতে কম চেষ্টা চালাচ্ছেন না বিজ্ঞানীরাও। সেটি সাগরের তলদেশ থেকে জাহাজের ল্যাবরেটরিতে তুলে এনেছেন তাঁরা। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর পরও এর উৎপত্তি সম্পর্কে ধোঁয়াশায় থাকার কথা জানিয়েছে এনওএএ।

এনওএএর সাগরে অনুসন্ধানবিষয়ক সমন্বয়ক স্যাম ক্যানডিও বলেন, বস্তুটির সঙ্গে পরিচিত কোনো প্রাণীর সম্পর্ক আছে কি না, তা জানা যায়নি। সেটি নতুন কোনো প্রাণী কি না বা কোনো প্রাণীর জীবনচক্রের অংশ কি না, তা-ও স্পষ্ট নয়।

স্যাম ক্যানডিও আরও বলেন, ‘এটি আমাদের একটি বিষয় মনে করিয়ে দেয় যে পৃথিবী সম্পর্কে আমরা কতটা কম জানি। আর আমাদের জানার কতটা বাকি আছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ডিবির হারুন বলেন, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাং সদস্যদের সঙ্গে জড়িত ৩৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছৈ। তাদের গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওয়ারী ও গুলশান বিভাগ। গ্রেফতারদের মধ্যে বেশিরভাগ কিশোর গ্যাং সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রয়েছে। তিনি জানান, গ্রেফতাররা বাড্ডা, ভাটারা, তুরাগ, তিনশ ফিট ও যাত্রাবাড়ীসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় টার্গেট করা ব্যক্তিদের ইভটিজিং বা কোনো সময় ধাক্কা দেওয়ার ছলে উত্ত্যক্ত করত। এরপর তারা ঘেরাও করে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে মোবাইলফোন এবং নারীদের কাছ থেকে সোনার অলঙ্কার ছিনিয়ে নিত। এ ছাড়া তারা ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও চুরির সঙ্গে জড়িত। এসব গ্যাং সদস্য মাদক কারবারের সঙ্গেও জড়িত। ডিবি হারুন জানান, গ্রেফতার কিশোর গ্যাং সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদে কিছু কথিত বড় ভাইয়ের নাম পাওয়া গেছে। বড় ভাইদেরও গ্রেফতার করা হবে। কিশোর গ্যাং সদস্যদের বিরুদ্ধে ডিবির প্রতিটি টিম কাজ করছে।

সাগরতলে ‘সোনার ডিম

আপডেট সময় : ০৪:৫৩:২৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২৩

সোনার ডিম! ছেলেবেলায় রূপকথার গল্পে এমন ডিমের কথা আমরা অহরহ শুনেছি। এবার কল্পনার সেই জগৎ পেরিয়ে ‘সোনার ডিমের’ মতোই একটি বস্তুর সন্ধান পেয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা। তা-ও আবার সাগরের তলদেশে। তবে সেটি আসলে কী, তা এখনো নিশ্চিত করে কেউ জানেন না।

রহস্যময় ওই বস্তু পাওয়া গেছে যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কা অঙ্গরাজ্যে সাগরের প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মিটার (সাড়ে ৩ কিলোমিটার) নিচে। গত ৩০ আগস্ট সাগরের তলদেশের জীবজগৎ নিয়ে গবেষণার সময় বিজ্ঞানীদের নজরে পড়ে বস্তুটি। সোনালি রঙের ডিম্বাকৃতির এ বস্তুর ব্যাস ৪ ইঞ্চি। এর গোড়ার দিকে একটি ছোট ফাটল রয়েছে।

‘ডিমটির’ সন্ধান পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশানিক অ্যান্ড অ্যাটমোসফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এনওএএ)। তারা জানিয়েছে, সাগরের তলদেশে বস্তুটির দিকে যখন ক্যামেরা নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন এটির পরিচয় শনাক্ত করতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা ধন্দে পড়ে গিয়েছিলেন। প্রথমে মনে হচ্ছিল, সেটি কোনো মৃত স্পঞ্জ বা কোরাল। বস্তুটি যেন রূপকথার গল্পের মতোই কোনো কিছু। তাই এটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সোনার ডিম’।

এদিকে বস্তুটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও চলছে গুঞ্জন। অনেকে বলছেন, এটি হয়তো ভিনদেশি কোনো প্রাণীর ডিম! এটি আসলেই কী, তা জানতে কম চেষ্টা চালাচ্ছেন না বিজ্ঞানীরাও। সেটি সাগরের তলদেশ থেকে জাহাজের ল্যাবরেটরিতে তুলে এনেছেন তাঁরা। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর পরও এর উৎপত্তি সম্পর্কে ধোঁয়াশায় থাকার কথা জানিয়েছে এনওএএ।

এনওএএর সাগরে অনুসন্ধানবিষয়ক সমন্বয়ক স্যাম ক্যানডিও বলেন, বস্তুটির সঙ্গে পরিচিত কোনো প্রাণীর সম্পর্ক আছে কি না, তা জানা যায়নি। সেটি নতুন কোনো প্রাণী কি না বা কোনো প্রাণীর জীবনচক্রের অংশ কি না, তা-ও স্পষ্ট নয়।

স্যাম ক্যানডিও আরও বলেন, ‘এটি আমাদের একটি বিষয় মনে করিয়ে দেয় যে পৃথিবী সম্পর্কে আমরা কতটা কম জানি। আর আমাদের জানার কতটা বাকি আছে।’