ঢাকা ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

বিদেশ শেষ আন্দোলনে মন’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:০৪:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪ ১৭ বার পড়া হয়েছে

বিএনপির পরবর্তী পরিকল্পনা নিয়ে দেশ রূপান্তরের প্রধান শিরোনাম ‘বিদেশ শেষ আন্দোলনে মন’।

প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নির্বাচনের আগে সরকারের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে টানা আন্দোলনে ছিল বিএনপি। সমানতালে চলছিল দলটির কূটনৈতিক রাজনীতিও।

নির্বাচনের আগে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের নির্বাচনে তাদের প্রত্যাশা নিয়ে তৎপর হয়ে ওঠে। বিএনপির সঙ্গে বিভিন্ন সময় বৈঠকও হয়।

যুক্তরাষ্ট্র ভিসানীতি ও শ্রমনীতি ঘোষণা করে সরকারের ওপর বেশ চাপ প্রয়োগ করে। বিদেশিদের এমন তৎপরতার পাশাপাশি বিএনপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনও চাঙ্গা হয়ে ওঠে।
কিন্তু ২৮শে অক্টোবরের পর কঠোর আন্দোলনে নেমে মামলায় জড়িয়ে ছত্রভঙ্গ হয়ে যান দলের নেতাকর্মীরা। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাচন করে ফেলার পর সরকার গঠন করে অভিনন্দন ও স্বীকৃতি পাচ্ছে।

এমন পরিস্থিতি বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা তৈরি করেছে।

তবে দলটির নেতারা বলছেন, সরকারকে কে স্বীকৃতি দিল না দিল সেটা নিয়ে তারা ভাবছেন না। তারা নতুন করে আন্দোলনের কথাই ভাবছেন।

এই চিন্তাকে বাস্তবে রূপ দিতে আগামী শুক্র ও শনিবার দুদিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। সরকার পদত্যাগ না করা পর্যন্ত এভাবে ধাপে ধাপে আন্দোলন চলতে থাকবে বলে জানিয়েছেন দলের নেতারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বিদেশ শেষ আন্দোলনে মন’

আপডেট সময় : ১০:০৪:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৪

বিএনপির পরবর্তী পরিকল্পনা নিয়ে দেশ রূপান্তরের প্রধান শিরোনাম ‘বিদেশ শেষ আন্দোলনে মন’।

প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, নির্বাচনের আগে সরকারের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে টানা আন্দোলনে ছিল বিএনপি। সমানতালে চলছিল দলটির কূটনৈতিক রাজনীতিও।

নির্বাচনের আগে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের নির্বাচনে তাদের প্রত্যাশা নিয়ে তৎপর হয়ে ওঠে। বিএনপির সঙ্গে বিভিন্ন সময় বৈঠকও হয়।

যুক্তরাষ্ট্র ভিসানীতি ও শ্রমনীতি ঘোষণা করে সরকারের ওপর বেশ চাপ প্রয়োগ করে। বিদেশিদের এমন তৎপরতার পাশাপাশি বিএনপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনও চাঙ্গা হয়ে ওঠে।
কিন্তু ২৮শে অক্টোবরের পর কঠোর আন্দোলনে নেমে মামলায় জড়িয়ে ছত্রভঙ্গ হয়ে যান দলের নেতাকর্মীরা। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাচন করে ফেলার পর সরকার গঠন করে অভিনন্দন ও স্বীকৃতি পাচ্ছে।

এমন পরিস্থিতি বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা তৈরি করেছে।

তবে দলটির নেতারা বলছেন, সরকারকে কে স্বীকৃতি দিল না দিল সেটা নিয়ে তারা ভাবছেন না। তারা নতুন করে আন্দোলনের কথাই ভাবছেন।

এই চিন্তাকে বাস্তবে রূপ দিতে আগামী শুক্র ও শনিবার দুদিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। সরকার পদত্যাগ না করা পর্যন্ত এভাবে ধাপে ধাপে আন্দোলন চলতে থাকবে বলে জানিয়েছেন দলের নেতারা।