ঢাকা ০১:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

বিএনপি সন্ত্রাসী দল হলে আপনারা তো সন্ত্রাসের বাবা: ফখরুল

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:২৫:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩ ৫৮ বার পড়া হয়েছে

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‌‘এখন নতুন সুর শুরু করেছেন, বিএনপি সন্ত্রাসী দল। গতকাল (বৃহস্পতিবার)ও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন। বিএনপি সন্ত্রাসী দল হলে আপনারা কী? আপনারা তো সন্ত্রাসের বাবা।’

আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সেমিনারে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসব কথা বলেন। ‘কৃষি উপকরণ ও খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি: সরকারের অব্যবস্থাপনা—কৃষক এবং জনগণের নাভিশ্বাস’ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে সোনালি দল, ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকেই সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানিয়ে ফেলেছে, সেমিনারে এমন দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘রাষ্ট্রযন্ত্রকে পুরোপুরি সন্ত্রাসের রাজত্ব বানিয়ে দিয়ে আপনারা ক্ষমতায় টিকে থাকতে চান।’
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে বলে সেমিনারে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এখন একেবারে মৃত্যুবরণ করার মতো অবস্থা হয়ে গেছে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‌দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নজিরবিহীন। সব দেশেই কিছু কিছু দাম বেড়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে যেটা বেড়েছে, এটা অবিশ্বাস্য, নজিরবিহীন দাম বেড়েছে। এর পেছনে কারণ অনেকগুলো। মূল কারণ জবাবদিহিবিহীন সরকার।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রজেক্ট অনেক করা হচ্ছে। প্রজেক্টের মূল লক্ষ্য চুরি করা। এমন চুরি, যেটা এক কোটি টাকায় হবে, সেটা তিন কোটি টাকা। যেটা ১০ কোটি টাকায় হবে, সেটা ২০ কোটি টাকা।’

বিএনপি নেতা ফখরুল সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘সবাই (সরকরি কর্মকর্তা) কম না কম প্রজেক্টের সঙ্গে জড়িত। প্রজেক্টের সঙ্গে জড়িত থাকলে পয়সা আসে। অবস্থা এখন এমন, সাধারণ মানুষ ডিম কিনতে পারছে না, ডাল কিনতে পারছে না, শাক কিনতে পারছে না। কিন্তু নির্বাচনে ঘুষ দেওয়ার জন্য ইউএনও এবং ডিসিদের জন্য ৩৬৫ কোটি টাকা দিয়ে নতুন গাড়ি কেনা হচ্ছে। তাঁদের টাকা দেওয়া হচ্ছে আলাদা করে। শোনা যাচ্ছে, ইতিমধ্যে যাঁরা ডিসি–এসপি, যাঁরা নির্বাচন পরিচালনা করবেন, তাঁদের কাছে টাকা পৌঁছে গেছে।’
বিএনপি শান্তিপূর্ণভাবে, নিয়মতান্ত্রিকভাবে, গণতান্ত্রিক উপায়ে আন্দোলন করছে জানিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের তো উপায় নেই, আমরা খালি হাতে আছি। আমাদের হাতে তো বন্দুক–পিস্তল নেই যে আপনাকে ভয় দেখাব, গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসব। আপনাকে আমি ডিবিতে নিয়ে গিয়ে অত্যাচার নির্যাতন করব। সেই ক্ষমতা তো আমার নেই।’ তিনি বলেন ‘আমার একটাই ক্ষমতা আছে। মানুষকে সংগঠিত করা, মানুষকে বলা যে এই অবস্থা থেকে বেরোতে চাইলে, মুক্তি পেতে চাইলে কোনো উপায় নেই, রাস্তায় বেরিয়ে আসতে হবে। এই রাস্তায় বেরিয়ে আসাই তো বড় কথা।’

সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক তাজমেরি এস এ ইসলাম, আবদুস সালাম প্রমুখ।

ময়মনসিংহের বাংলাদশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সোনালি দলের সভাপতি অধ্যাপক গোলাম হাফিজ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন। সঞ্চালনা করেন আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বিএনপি সন্ত্রাসী দল হলে আপনারা তো সন্ত্রাসের বাবা: ফখরুল

আপডেট সময় : ০৩:২৫:৫৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‌‘এখন নতুন সুর শুরু করেছেন, বিএনপি সন্ত্রাসী দল। গতকাল (বৃহস্পতিবার)ও প্রধানমন্ত্রী বলেছেন। বিএনপি সন্ত্রাসী দল হলে আপনারা কী? আপনারা তো সন্ত্রাসের বাবা।’

আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সেমিনারে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসব কথা বলেন। ‘কৃষি উপকরণ ও খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি: সরকারের অব্যবস্থাপনা—কৃষক এবং জনগণের নাভিশ্বাস’ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে সোনালি দল, ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকেই সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানিয়ে ফেলেছে, সেমিনারে এমন দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘রাষ্ট্রযন্ত্রকে পুরোপুরি সন্ত্রাসের রাজত্ব বানিয়ে দিয়ে আপনারা ক্ষমতায় টিকে থাকতে চান।’
দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে বলে সেমিনারে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এখন একেবারে মৃত্যুবরণ করার মতো অবস্থা হয়ে গেছে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‌দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নজিরবিহীন। সব দেশেই কিছু কিছু দাম বেড়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে যেটা বেড়েছে, এটা অবিশ্বাস্য, নজিরবিহীন দাম বেড়েছে। এর পেছনে কারণ অনেকগুলো। মূল কারণ জবাবদিহিবিহীন সরকার।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রজেক্ট অনেক করা হচ্ছে। প্রজেক্টের মূল লক্ষ্য চুরি করা। এমন চুরি, যেটা এক কোটি টাকায় হবে, সেটা তিন কোটি টাকা। যেটা ১০ কোটি টাকায় হবে, সেটা ২০ কোটি টাকা।’

বিএনপি নেতা ফখরুল সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘সবাই (সরকরি কর্মকর্তা) কম না কম প্রজেক্টের সঙ্গে জড়িত। প্রজেক্টের সঙ্গে জড়িত থাকলে পয়সা আসে। অবস্থা এখন এমন, সাধারণ মানুষ ডিম কিনতে পারছে না, ডাল কিনতে পারছে না, শাক কিনতে পারছে না। কিন্তু নির্বাচনে ঘুষ দেওয়ার জন্য ইউএনও এবং ডিসিদের জন্য ৩৬৫ কোটি টাকা দিয়ে নতুন গাড়ি কেনা হচ্ছে। তাঁদের টাকা দেওয়া হচ্ছে আলাদা করে। শোনা যাচ্ছে, ইতিমধ্যে যাঁরা ডিসি–এসপি, যাঁরা নির্বাচন পরিচালনা করবেন, তাঁদের কাছে টাকা পৌঁছে গেছে।’
বিএনপি শান্তিপূর্ণভাবে, নিয়মতান্ত্রিকভাবে, গণতান্ত্রিক উপায়ে আন্দোলন করছে জানিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের তো উপায় নেই, আমরা খালি হাতে আছি। আমাদের হাতে তো বন্দুক–পিস্তল নেই যে আপনাকে ভয় দেখাব, গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসব। আপনাকে আমি ডিবিতে নিয়ে গিয়ে অত্যাচার নির্যাতন করব। সেই ক্ষমতা তো আমার নেই।’ তিনি বলেন ‘আমার একটাই ক্ষমতা আছে। মানুষকে সংগঠিত করা, মানুষকে বলা যে এই অবস্থা থেকে বেরোতে চাইলে, মুক্তি পেতে চাইলে কোনো উপায় নেই, রাস্তায় বেরিয়ে আসতে হবে। এই রাস্তায় বেরিয়ে আসাই তো বড় কথা।’

সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক তাজমেরি এস এ ইসলাম, আবদুস সালাম প্রমুখ।

ময়মনসিংহের বাংলাদশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সোনালি দলের সভাপতি অধ্যাপক গোলাম হাফিজ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন। সঞ্চালনা করেন আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ।