ঢাকা ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

পদদলিত হয়ে অন্তত ১১৬ জনের মৃত্যু ভারতে ধর্মীয় উৎসবে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:২৮:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪ ৬০ বার পড়া হয়েছে

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরাসে এক ধর্মীয় উৎসব চলাকালীন পদপিষ্ট হয়ে এখনও পর্যন্ত ১১৬ জন ভক্তের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। নিহতদের অধিকাংশই নারী। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

উত্তর প্রদেশের আলিগড় রেঞ্জ আইজি শলব্ মাথুরকে উদ্বৃত করে বার্তা সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ওই ঘটনায় ১১৬ মানুষ নিহত হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, সেখানকার মরচ্যুয়ারিতে আর মৃতদেহ রাখার জায়গা নেই।

এর আগে সন্ধ্যায় হাথরাসের পুলিশ সুপার নিপুন আগরওয়াল বিবিসির সংবাদদাতা দিলনাওয়াজ পাশাকে নিশ্চিত করেছিলেন যে ওই দুর্ঘটনায় অন্তত ৬০ জন মারা গেছেন।

মঙ্গলবার হিন্দুদের ধর্মীয় জমায়েত ‘সৎসঙ্গ’ শেষ হওয়ার পরে হঠাৎই দৌড়োদৌড়ি শুরু হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

যে জায়গায় এক ধর্মগুরুর ভাষণ শোনার জন্য অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়েছিল, সেটি ইটাহ এবং হাথরাস জেলা দুটির সীমান্তে।

সংবাদ সংস্থা এএনআইকে সিনিয়র পুলিশ সুপার রাজেশ কুমার সিং জানিয়েছেন, “একটি মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে, হাথরাস জেলার মুঘলগড়ি গ্রামে ভোলে বাবার অনুষ্ঠান চলছিল। সেখানেই পদপিষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা হয়েছে।“

জেলার প্রধান মেডিক্যাল অফিসার উমেশ কুমার বলেছেন যে, আহতদের অনেককে ইটাহ-র হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সিকান্দ্রারাউ শহরের একটি ট্রমা সেন্টারে।

তিনি জানিয়েছেন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শতাধিক মানুষ আহত হয়ে ভর্তি আছেন।

মৃতদেহের ময়না তদন্ত করে নাম পরিচয় নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

ট্রমা সেন্টারে নিহতদের পরিবারের এক সদস্য বলেন, “এত বড় মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে কিন্তু একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এখানে উপস্থিত নেই। ভোলে বাবাকে এখানে এত বড় অনুষ্ঠান করার অনুমতি কে দিয়েছে? প্রশাসন কোথায়?”

আহত ও নিহতদের ট্রাক, টেম্পো ও অ্যাম্বুলেন্সে করে ট্রমা সেন্টারে আনা হয়।

ভিডিওতে দেখা গেছে, ট্রমা সেন্টারের বাইরে মেঝেতে পড়ে রয়েছে দুইজন নারীর দেহ।

ট্রমা সেন্টারের বাইরে বিশৃঙ্খলা রয়েছে এবং লোকেরা তাদের নিকটাত্মীয়দের সন্ধানে সেখানে আসছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান
আলিগড় রেঞ্জের পুলিশ আইজি শলভ্ মাথুর সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন যে ‘ভোলে বাবা’ নামে ওই ধর্মগুরুর অনুষ্ঠানের জন্য অস্থায়ী অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

হিন্দুস্তান টাইমস সংবাদপত্র ‘ভোলে বাবা’ নামের ওই ধর্মগুরুর ‘সৎসঙ্গ’ অনুষ্ঠানে হাজির এক প্রত্যক্ষদর্শীর সঙ্গে কথা বলেছে। তিনি নিজেও আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

ওই প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন যে প্রচণ্ড গরমে তাঁবুর মধ্যে অনুষ্ঠান চলছিল। গরমের কারণে পুরো অনুষ্ঠান চলাকালীনই ভক্তদের অস্বস্তিতে কাটাতে হয়েছে। তাই অনুষ্ঠান শেষ হতেই সবাই হুড়োহুড়ি করে বেরনোর চেষ্টা করছিলেন।

“সবাই বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছিল কিন্তু বের হবার পথ ছিল না। একজন আরেকজনের ওপরে পড়ে গিয়ে পদপিষ্ট হয়ে গেছেন। আমি নিজেও বেরোতে গিয়ে দেখি মোটরসাইকেল রাখার কারণে বেরনোর পথ বন্ধ হয়ে গেছে,” হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন ওই প্রত্যক্ষদর্শী।

যোগী আদিত্যনাথের বিবৃতি
সামাজিক মাধ্যম এক্স (সাবেক টুইটার)-এ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর তরফে একটি বিবৃতি জারি করে হাথরাসের দুর্ঘটনায় মৃতদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে।

আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দ্রুত আহতদের হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া এবং ঘটনাস্থলে ত্রাণ বিলি করার নির্দেশ দিয়েছেন।

আগ্রার অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিচালক এবং আলিগড়ের কমিশনারকে এই দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পদদলিত হয়ে অন্তত ১১৬ জনের মৃত্যু ভারতে ধর্মীয় উৎসবে

আপডেট সময় : ১০:২৮:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরাসে এক ধর্মীয় উৎসব চলাকালীন পদপিষ্ট হয়ে এখনও পর্যন্ত ১১৬ জন ভক্তের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। নিহতদের অধিকাংশই নারী। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

উত্তর প্রদেশের আলিগড় রেঞ্জ আইজি শলব্ মাথুরকে উদ্বৃত করে বার্তা সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ওই ঘটনায় ১১৬ মানুষ নিহত হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, সেখানকার মরচ্যুয়ারিতে আর মৃতদেহ রাখার জায়গা নেই।

এর আগে সন্ধ্যায় হাথরাসের পুলিশ সুপার নিপুন আগরওয়াল বিবিসির সংবাদদাতা দিলনাওয়াজ পাশাকে নিশ্চিত করেছিলেন যে ওই দুর্ঘটনায় অন্তত ৬০ জন মারা গেছেন।

মঙ্গলবার হিন্দুদের ধর্মীয় জমায়েত ‘সৎসঙ্গ’ শেষ হওয়ার পরে হঠাৎই দৌড়োদৌড়ি শুরু হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

যে জায়গায় এক ধর্মগুরুর ভাষণ শোনার জন্য অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়েছিল, সেটি ইটাহ এবং হাথরাস জেলা দুটির সীমান্তে।

সংবাদ সংস্থা এএনআইকে সিনিয়র পুলিশ সুপার রাজেশ কুমার সিং জানিয়েছেন, “একটি মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে, হাথরাস জেলার মুঘলগড়ি গ্রামে ভোলে বাবার অনুষ্ঠান চলছিল। সেখানেই পদপিষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা হয়েছে।“

জেলার প্রধান মেডিক্যাল অফিসার উমেশ কুমার বলেছেন যে, আহতদের অনেককে ইটাহ-র হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সিকান্দ্রারাউ শহরের একটি ট্রমা সেন্টারে।

তিনি জানিয়েছেন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শতাধিক মানুষ আহত হয়ে ভর্তি আছেন।

মৃতদেহের ময়না তদন্ত করে নাম পরিচয় নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

ট্রমা সেন্টারে নিহতদের পরিবারের এক সদস্য বলেন, “এত বড় মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে কিন্তু একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এখানে উপস্থিত নেই। ভোলে বাবাকে এখানে এত বড় অনুষ্ঠান করার অনুমতি কে দিয়েছে? প্রশাসন কোথায়?”

আহত ও নিহতদের ট্রাক, টেম্পো ও অ্যাম্বুলেন্সে করে ট্রমা সেন্টারে আনা হয়।

ভিডিওতে দেখা গেছে, ট্রমা সেন্টারের বাইরে মেঝেতে পড়ে রয়েছে দুইজন নারীর দেহ।

ট্রমা সেন্টারের বাইরে বিশৃঙ্খলা রয়েছে এবং লোকেরা তাদের নিকটাত্মীয়দের সন্ধানে সেখানে আসছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান
আলিগড় রেঞ্জের পুলিশ আইজি শলভ্ মাথুর সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন যে ‘ভোলে বাবা’ নামে ওই ধর্মগুরুর অনুষ্ঠানের জন্য অস্থায়ী অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

হিন্দুস্তান টাইমস সংবাদপত্র ‘ভোলে বাবা’ নামের ওই ধর্মগুরুর ‘সৎসঙ্গ’ অনুষ্ঠানে হাজির এক প্রত্যক্ষদর্শীর সঙ্গে কথা বলেছে। তিনি নিজেও আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

ওই প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন যে প্রচণ্ড গরমে তাঁবুর মধ্যে অনুষ্ঠান চলছিল। গরমের কারণে পুরো অনুষ্ঠান চলাকালীনই ভক্তদের অস্বস্তিতে কাটাতে হয়েছে। তাই অনুষ্ঠান শেষ হতেই সবাই হুড়োহুড়ি করে বেরনোর চেষ্টা করছিলেন।

“সবাই বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছিল কিন্তু বের হবার পথ ছিল না। একজন আরেকজনের ওপরে পড়ে গিয়ে পদপিষ্ট হয়ে গেছেন। আমি নিজেও বেরোতে গিয়ে দেখি মোটরসাইকেল রাখার কারণে বেরনোর পথ বন্ধ হয়ে গেছে,” হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন ওই প্রত্যক্ষদর্শী।

যোগী আদিত্যনাথের বিবৃতি
সামাজিক মাধ্যম এক্স (সাবেক টুইটার)-এ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর তরফে একটি বিবৃতি জারি করে হাথরাসের দুর্ঘটনায় মৃতদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে।

আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দ্রুত আহতদের হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে যথাযথ চিকিৎসা দেওয়া এবং ঘটনাস্থলে ত্রাণ বিলি করার নির্দেশ দিয়েছেন।

আগ্রার অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিচালক এবং আলিগড়ের কমিশনারকে এই দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।