ঢাকা ১২:২১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

নাফ নদের ৪টি ইলিশের দাম হাঁকানো হচ্ছে ২১ হাজার টাকা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৪৫:০৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৩০ বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজারের টেকনাফে এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বড় আকারের চারটি ইলিশ মাছ। এই চার ইলিশের ওজন সাড়ে আট কেজি। বিক্রেতা এখন এগুলোর দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা।

গতকাল শুক্রবার উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরার লালদিয়ার কাছাকাছি নাফ নদে আলী আহমদের জালে রাত সাড়ে আটটার দিকে মাছ চারটি ধরা পড়ে। এর একটির ওজন ২ কেজি ৫০০ গ্রাম এবং অপর তিনটির ওজন ২ কেজি করে। টেকনাফ পৌরসভার ইসলামাবাদের বাসিন্দা ও বাসস্ট্যান্ডের মাছ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসান ১২ হাজার টাকায় মাছগুলো কিনে এখন দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা।

জেলে আলী আহমদ বলেন, গতকাল কর্কশিটের ভেলা নিয়ে তিনি নাফ নদের লালদিয়ার কাছাকাছি জাল ফেলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে জাল তুলে দেখেন, বড় আকারের চারটি ইলিশ ধরা পড়েছে। রাত ১০টার দিকে টেকনাফ পৌরসভার বাসস্ট্যান্ড মাছবাজারে নিয়ে মাছগুলো ১২ হাজার টাকায় বিক্রি করেন।

মাছ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসান বলেন, প্রতি কেজি ২ হাজার ৫০০ টাকা দরে তিনি ৪টি মাছের দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা। অনেকে প্রতি কেজি ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা করে দাম করছেন। এখানে বিক্রি করতে না পারলে তিনি মাছগুলো টেকনাফ বড় বাজারে বিক্রির চেষ্টা করবেন।

মাছ ব্যবসায়ীরা বলেন, সাগর থেকে জেলেরা খালি হাতে ফিরছেন। তবে বাজারে কয়েক দিন ধরে বড় আকারের কিছু ইলিশ আসছে। এসব বড় ইলিশ সাগরে নয়, নাফ নদে ধরা পড়ছে। বড় ইলিশ দেখলে ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছেন। চাহিদা বুঝে বিক্রেতারাও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, গত আগস্ট মাসে এক সপ্তাহের মধ্যে নাফ নদ থেকে দুই ও আড়াই কেজি ওজনের আটটি ইলিশ ধরা পড়ে। নাফ নদে ছয় বছর ধরে মাছ ধরা বন্ধ থাকলেও জেলেরা জীবিকার তাগিদে চুরি করে মাছ ধরছেন। বর্তমানে নাফ নদ ইলিশ, কোরালসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ও ইয়াবা পাচার ঠেকাতে ২০১৭ সালের এপ্রিলের শুরু থেকে নাফ নদে মাছ ধরা বন্ধ করে দেয় বিজিবি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

নাফ নদের ৪টি ইলিশের দাম হাঁকানো হচ্ছে ২১ হাজার টাকা

আপডেট সময় : ০৫:৪৫:০৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

কক্সবাজারের টেকনাফে এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বড় আকারের চারটি ইলিশ মাছ। এই চার ইলিশের ওজন সাড়ে আট কেজি। বিক্রেতা এখন এগুলোর দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা।

গতকাল শুক্রবার উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরার লালদিয়ার কাছাকাছি নাফ নদে আলী আহমদের জালে রাত সাড়ে আটটার দিকে মাছ চারটি ধরা পড়ে। এর একটির ওজন ২ কেজি ৫০০ গ্রাম এবং অপর তিনটির ওজন ২ কেজি করে। টেকনাফ পৌরসভার ইসলামাবাদের বাসিন্দা ও বাসস্ট্যান্ডের মাছ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসান ১২ হাজার টাকায় মাছগুলো কিনে এখন দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা।

জেলে আলী আহমদ বলেন, গতকাল কর্কশিটের ভেলা নিয়ে তিনি নাফ নদের লালদিয়ার কাছাকাছি জাল ফেলেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে জাল তুলে দেখেন, বড় আকারের চারটি ইলিশ ধরা পড়েছে। রাত ১০টার দিকে টেকনাফ পৌরসভার বাসস্ট্যান্ড মাছবাজারে নিয়ে মাছগুলো ১২ হাজার টাকায় বিক্রি করেন।

মাছ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসান বলেন, প্রতি কেজি ২ হাজার ৫০০ টাকা দরে তিনি ৪টি মাছের দাম হাঁকাচ্ছেন ২১ হাজার টাকা। অনেকে প্রতি কেজি ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা করে দাম করছেন। এখানে বিক্রি করতে না পারলে তিনি মাছগুলো টেকনাফ বড় বাজারে বিক্রির চেষ্টা করবেন।

মাছ ব্যবসায়ীরা বলেন, সাগর থেকে জেলেরা খালি হাতে ফিরছেন। তবে বাজারে কয়েক দিন ধরে বড় আকারের কিছু ইলিশ আসছে। এসব বড় ইলিশ সাগরে নয়, নাফ নদে ধরা পড়ছে। বড় ইলিশ দেখলে ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছেন। চাহিদা বুঝে বিক্রেতারাও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, গত আগস্ট মাসে এক সপ্তাহের মধ্যে নাফ নদ থেকে দুই ও আড়াই কেজি ওজনের আটটি ইলিশ ধরা পড়ে। নাফ নদে ছয় বছর ধরে মাছ ধরা বন্ধ থাকলেও জেলেরা জীবিকার তাগিদে চুরি করে মাছ ধরছেন। বর্তমানে নাফ নদ ইলিশ, কোরালসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ও ইয়াবা পাচার ঠেকাতে ২০১৭ সালের এপ্রিলের শুরু থেকে নাফ নদে মাছ ধরা বন্ধ করে দেয় বিজিবি।