ঢাকা ০১:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

ডেঙ্গুতে মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:১৭:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৮৩ বার পড়া হয়েছে

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩।

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন

ডেঙ্গুতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখল দেশ, হাসপাতালে ভর্তি আরও ২৩৫২

প্রতিদিনই সারা দেশে বাড়ছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা

বেশি মৃত্যুর কারণ

বেশি মৃত্যুর কারণ কী? উত্তরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, তিনটি কারণে বাংলাদেশে মৃত্যুহার বেশি হতে পারে বা বেশি মনে হতে পারে। বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো। দ্বিতীয়ত, বাংলাদেশে একই সঙ্গে ডেঙ্গুভাইরাসের দুটি ধরন সক্রিয় আছে। এর জন্য রোগীর জটিলতা বেশি দেখা দিচ্ছে। তৃতীয়ত, হাসপাতালে রোগী ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি থাকতে পারে। রোগীর শরীরে তরল ব্যবস্থাপনা (ফ্লুইড ম্যানেজমেন্ট) এবং অণুচক্রিকা ব্যবস্থাপনা ঠিক হচ্ছে কি না, তার সঠিক চিত্র জানা নেই।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন

ডেঙ্গুতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখল দেশ, হাসপাতালে ভর্তি আরও ২৩৫২

প্রতিদিনই সারা দেশে বাড়ছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা

বেশি মৃত্যুর কারণ

বেশি মৃত্যুর কারণ কী? উত্তরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, তিনটি কারণে বাংলাদেশে মৃত্যুহার বেশি হতে পারে বা বেশি মনে হতে পারে। বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো। দ্বিতীয়ত, বাংলাদেশে একই সঙ্গে ডেঙ্গুভাইরাসের দুটি ধরন সক্রিয় আছে। এর জন্য রোগীর জটিলতা বেশি দেখা দিচ্ছে। তৃতীয়ত, হাসপাতালে রোগী ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি থাকতে পারে। রোগীর শরীরে তরল ব্যবস্থাপনা (ফ্লুইড ম্যানেজমেন্ট) এবং অণুচক্রিকা ব্যবস্থাপনা ঠিক হচ্ছে কি না, তার সঠিক চিত্র জানা নেই।

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি।

তবে ৩১ আগস্ট বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাপ্তাহিক পর্যালোচনায় বলা হয়েছে, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃতদের মধে৵ ৫৫ শতাংশ রোগী হাসপাতালে ভর্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মারা গেছেন। ৮১ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে ভর্তি হওয়ার তিন দিনের মধ্যে। এর অর্থ, যাঁরা মারা যাচ্ছেন, তাঁরা দেরি করে হাসপাতালে আসছেন। যখন হাসপাতালে আসছেন, তখন চিকিৎসকদের বিশেষ কিছু করার থাকছে না।

ওই পর্যালোচনায় বলা হয়েছে, মৃত রোগীর ৬৪ শতাংশের মধ্যে ডেঙ্গুর শক সিনড্রোম দেখা গেছে। ২৪ শতাংশ রোগীর লক্ষণ ছিল এক্সপানডেড ডেঙ্গু। ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার ছিল ৮ শতাংশ রোগীর। আর মৃত ব্যক্তির ৪ শতাংশের অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী রোগের সঙ্গে ডেঙ্গুও ছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ডেঙ্গুতে মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশে

আপডেট সময় : ০৬:১৭:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩।

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন

ডেঙ্গুতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখল দেশ, হাসপাতালে ভর্তি আরও ২৩৫২

প্রতিদিনই সারা দেশে বাড়ছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা

বেশি মৃত্যুর কারণ

বেশি মৃত্যুর কারণ কী? উত্তরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, তিনটি কারণে বাংলাদেশে মৃত্যুহার বেশি হতে পারে বা বেশি মনে হতে পারে। বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো। দ্বিতীয়ত, বাংলাদেশে একই সঙ্গে ডেঙ্গুভাইরাসের দুটি ধরন সক্রিয় আছে। এর জন্য রোগীর জটিলতা বেশি দেখা দিচ্ছে। তৃতীয়ত, হাসপাতালে রোগী ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি থাকতে পারে। রোগীর শরীরে তরল ব্যবস্থাপনা (ফ্লুইড ম্যানেজমেন্ট) এবং অণুচক্রিকা ব্যবস্থাপনা ঠিক হচ্ছে কি না, তার সঠিক চিত্র জানা নেই।

By using this site, you agree to our Privacy Policy.

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরাফাইল ছবি প্রথম আলো

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এক দিনে ২১ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে দেশে এ বছর ডেঙ্গুতে ৬১৮ জনের মৃত্যু হলো। বিশ্বে শুধু ব্রাজিলেই এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে এ বছর। দেশটিতে ৯১২ জনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্য পর্যালোচনায় বাংলাদেশের চেয়ে বেশি মৃত্যুহার আর কোনো দেশে দেখা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আগস্টে সর্বোচ্চ ডেঙ্গু রোগী, কমা শুরু হলেও তিন কারণে উদ্বেগ

হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২ হাজার ৩৫২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছর ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৯৪। তাঁদের মধ্যে মারা গেছেন ৬১৮ জন। সরকারি হিসাবে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) সর্বশেষ পরিসংখ্যানে দেখা যায়, দক্ষিণ আমেরিকার কয়েকটি দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ বরাবরের মতো এ বছরও বেশি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্রাজিলে। দেশটিতে এ বছর ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে ১১ লাখ ৮৭ হাজার ৭০৮ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৯১২ জন। মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ ।

আরও পড়ুন

ঢাকার বাইরে এত ডেঙ্গু রোগী কেন, জানে না কেউ

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা আরমান। অসুস্থ বাবার পাশে বসে আছে শিশু আরাফ। গতকাল সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে

বাংলাদেশের পরে মৃত্যুর সংখ্যায় এগিয়ে আছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরু। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯৯ জন। দেশটিকে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ৩ । আর্জেন্টিনা ও বলিভিয়াতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। দেশ দুটিতে মৃত্যুহার যথাক্রমে শূন্য দশমিক শূন্য ৫ ও শূন্য দশমিক ৩ ।

 ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু।  ঢাকা শিশু হাসপাতালে
ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশু। ঢাকা শিশু হাসপাতালেফাইল ছবি প্রথম আলো

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ও এশিয়ার মধ্যে ডেঙ্গু বেশি মালয়েশিয়ায়। মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে দেশটিতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ৯২৮। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৪ জন। দেশটিতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক শূন্য ৭ । এই অঞ্চলে থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম ও ভারতেও ডেঙ্গুর সংক্রমণ একটু বেশি। কিন্তু এই তিন দেশেও মৃত্যুহার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক কম। ভারতে মৃত্যুহার শূন্য দশমিক ১।

বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। বাংলাদেশে ২০০ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হলে তাঁর মধ্য থেকে একজন মারা যাচ্ছেন। আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মতো প্রতিষ্ঠানে ১০০ জন ভর্তি হলে তাঁদের মধ্যে ২ জন মারা যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন

ডেঙ্গুতে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখল দেশ, হাসপাতালে ভর্তি আরও ২৩৫২

প্রতিদিনই সারা দেশে বাড়ছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা

বেশি মৃত্যুর কারণ

বেশি মৃত্যুর কারণ কী? উত্তরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক বে–নজির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, তিনটি কারণে বাংলাদেশে মৃত্যুহার বেশি হতে পারে বা বেশি মনে হতে পারে। বাংলাদেশে যাঁরা হাসপাতালে ভর্তি হন এবং তাঁদের মধ্যে কতজন মারা যাচ্ছেন, সেই হিসাব দেওয়া হয়; কিন্তু প্রকৃত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার সঙ্গে তুলনা করলে হারটা হয়তো কম হতো। দ্বিতীয়ত, বাংলাদেশে একই সঙ্গে ডেঙ্গুভাইরাসের দুটি ধরন সক্রিয় আছে। এর জন্য রোগীর জটিলতা বেশি দেখা দিচ্ছে। তৃতীয়ত, হাসপাতালে রোগী ব্যবস্থাপনায় ত্রুটি থাকতে পারে। রোগীর শরীরে তরল ব্যবস্থাপনা (ফ্লুইড ম্যানেজমেন্ট) এবং অণুচক্রিকা ব্যবস্থাপনা ঠিক হচ্ছে কি না, তার সঠিক চিত্র জানা নেই।

বিশ্বের যেসব দেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তার পরিসংখ্যান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইসিডিসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়। এসব দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, চলতি বছর আগস্টের শেষ পর্যন্ত মৃত্যুহার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি।

তবে ৩১ আগস্ট বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাপ্তাহিক পর্যালোচনায় বলা হয়েছে, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মৃতদের মধে৵ ৫৫ শতাংশ রোগী হাসপাতালে ভর্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মারা গেছেন। ৮১ শতাংশের মৃত্যু হয়েছে ভর্তি হওয়ার তিন দিনের মধ্যে। এর অর্থ, যাঁরা মারা যাচ্ছেন, তাঁরা দেরি করে হাসপাতালে আসছেন। যখন হাসপাতালে আসছেন, তখন চিকিৎসকদের বিশেষ কিছু করার থাকছে না।

ওই পর্যালোচনায় বলা হয়েছে, মৃত রোগীর ৬৪ শতাংশের মধ্যে ডেঙ্গুর শক সিনড্রোম দেখা গেছে। ২৪ শতাংশ রোগীর লক্ষণ ছিল এক্সপানডেড ডেঙ্গু। ডেঙ্গু হেমোরেজিক ফিভার ছিল ৮ শতাংশ রোগীর। আর মৃত ব্যক্তির ৪ শতাংশের অন্যান্য দীর্ঘস্থায়ী রোগের সঙ্গে ডেঙ্গুও ছিল।