ঢাকা ১১:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

“রাজধানীতে রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে এক ধরনের অত্যাচার করা হচ্ছে”

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৪৪:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪ ১৩৫ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীতে রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে এক ধরনের অত্যাচার করা হচ্ছে বলে দাবি করেছে রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি। বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব ইমরান হাসান বলেছেন, হাইকোর্ট কি দেখতে পাচ্ছে না আমাদের ওপর জুলুম হচ্ছে। বর্তমানে বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। আমাদের ওপর জুলুম হচ্ছে তা কি হাইকোর্ট দেখতে পাচ্ছে না? এদেশে প্রধানমন্ত্রী দিকনির্দেশনা না দিলে কোনো কাজ হবে না বলেও আক্ষেপ করেন তিনি।

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। রাজধানীর পল্টনে নিজস্ব ভবনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি।

ইমরান হাসান বলেন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ফিতা কাটায় ব্যস্ত। অনেকবার তার সাক্ষাৎ চাওয়া হলেও আমাদের সময় দেননি। আমরা ব্যবসার সব কার্যক্রম এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার জন্য দাবি করে যাচ্ছি কিন্তু সরকারের কোন সহযোগিতা নেই।

করপোরেট কোম্পানিগুলো এ খাত দখল নিতে চায় অভিযোগ করে ইমরান হাসান বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে বর্তমানে বড় একটি ষড়যন্ত্র চলছে। বহুজাতিক করপোরেট কোম্পানিগুলো এ খাতটি নিয়ে যেতেই এসব কাজ করছে। তারা চাল থেকে শুরু করে বেকারি ব্যবসা সব কিছু নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যেতে চায়। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জুলুম করে রেস্তোরাঁ ব্যবসা করপোরেট কোম্পানিগুলো নিয়ে যেতে চায়।

বেইলি রোডে আগুনের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী বৃহস্পতিবার কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারণ করা হবে বলে একটি কর্মসূচি নিয়েছে সমিতি।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে ৪ লাখ ৮১ হাজার রেস্তোরাঁ রয়েছে। সেখানে ৩০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ২ কোটি মানুষ এ পেশার ওপর নির্ভরশীল। হয়রানি না করে টাস্কফোর্স গঠন করে রেস্তোরাঁ ব্যবসা চালু রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে। দীর্ঘদিন ঘুরেও লাইসেন্স পাওয়া যায় না। কোনো অবৈধ রেস্তোরাঁ নেই।

তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তিনি সাক্ষাতের সময় দিলে সব সমস্যা নিয়ে কথা বলা হবে। আর যদি সময় না দেন তাহলে সব চাবি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে পাঠিয়ে দেব। তিনি বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সংস্থায় প্রায় এক হাজার চিঠি দেওয়া হয়েছে। আমাদের সমস্যার সমাধানে তারা সময় দেয় না।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

“রাজধানীতে রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে এক ধরনের অত্যাচার করা হচ্ছে”

আপডেট সময় : ০৭:৪৪:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪

রাজধানীতে রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে এক ধরনের অত্যাচার করা হচ্ছে বলে দাবি করেছে রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি। বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির মহাসচিব ইমরান হাসান বলেছেন, হাইকোর্ট কি দেখতে পাচ্ছে না আমাদের ওপর জুলুম হচ্ছে। বর্তমানে বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। আমাদের ওপর জুলুম হচ্ছে তা কি হাইকোর্ট দেখতে পাচ্ছে না? এদেশে প্রধানমন্ত্রী দিকনির্দেশনা না দিলে কোনো কাজ হবে না বলেও আক্ষেপ করেন তিনি।

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। রাজধানীর পল্টনে নিজস্ব ভবনে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি।

ইমরান হাসান বলেন, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ফিতা কাটায় ব্যস্ত। অনেকবার তার সাক্ষাৎ চাওয়া হলেও আমাদের সময় দেননি। আমরা ব্যবসার সব কার্যক্রম এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার জন্য দাবি করে যাচ্ছি কিন্তু সরকারের কোন সহযোগিতা নেই।

করপোরেট কোম্পানিগুলো এ খাত দখল নিতে চায় অভিযোগ করে ইমরান হাসান বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে বর্তমানে বড় একটি ষড়যন্ত্র চলছে। বহুজাতিক করপোরেট কোম্পানিগুলো এ খাতটি নিয়ে যেতেই এসব কাজ করছে। তারা চাল থেকে শুরু করে বেকারি ব্যবসা সব কিছু নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে যেতে চায়। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জুলুম করে রেস্তোরাঁ ব্যবসা করপোরেট কোম্পানিগুলো নিয়ে যেতে চায়।

বেইলি রোডে আগুনের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী বৃহস্পতিবার কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারণ করা হবে বলে একটি কর্মসূচি নিয়েছে সমিতি।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে ৪ লাখ ৮১ হাজার রেস্তোরাঁ রয়েছে। সেখানে ৩০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ২ কোটি মানুষ এ পেশার ওপর নির্ভরশীল। হয়রানি না করে টাস্কফোর্স গঠন করে রেস্তোরাঁ ব্যবসা চালু রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে। দীর্ঘদিন ঘুরেও লাইসেন্স পাওয়া যায় না। কোনো অবৈধ রেস্তোরাঁ নেই।

তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তিনি সাক্ষাতের সময় দিলে সব সমস্যা নিয়ে কথা বলা হবে। আর যদি সময় না দেন তাহলে সব চাবি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে পাঠিয়ে দেব। তিনি বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সংস্থায় প্রায় এক হাজার চিঠি দেওয়া হয়েছে। আমাদের সমস্যার সমাধানে তারা সময় দেয় না।