ঢাকা ০২:১০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে পরীক্ষামূলক জাহাজ চলাচল শুরু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:০৭:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১৬ বার পড়া হয়েছে

প্রায় ছয় মাস বন্ধ থাকার পর পরীক্ষামূলকভাবে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে চলাচল শুরু করেছে এমভি বার আউলিয়া নামের একটি জাহাজ। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে টেকনাফের দমদমিয়া জেটি থেকে সেন্ট মার্টিনের উদ্দেশে ছেড়ে যায় জাহাজটি। এ সময় কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমদের নেতৃত্বে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের দেড় শতাধিক লোক জাহাজে যাত্রী হিসেবে ছিলেন।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আগামীকাল বুধবার সকাল সাড়ে নয়টায় টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাট থেকে পর্যটকবাহী জাহাজটি ছেড়ে যাবে। আবার বেলা সাড়ে তিনটায় সেন্ট মার্টিন থেকে টেকনাফের উদ্দেশে রওনা হবে। আগামীকাল ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে কক্সবাজারে আয়োজিত বিচ কার্নিভ্যাল কেন্দ্র করে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমেদ।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমেদ বলেন, নৌপথ পর্যবেক্ষণের জন্য জেলা প্রশাসনের দল নিয়ে সেন্ট মার্টিনে যাত্রা করেন তাঁরা। এ সময় উভয় পাড়ের জেটিঘাট, নাফ নদীর নাব্যতাসহ আনুষঙ্গিক নানা বিষয় খতিয়ে দেখা হয়েছে।

টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল শুরু হয় চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি। পরে ১৮ মার্চ থেকে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এ পথে জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেয়। ওই সময় টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন থেকে কেয়ারি সিন্দবাদ, কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, আটলান্টিক, শহীদ আব্দুস সালাম, এমভি পারিজাত, এমভি রাজ হংস, সুকান্ত বাবু, এমভি বে ক্রুজ এবং এমভি বার আউলিয়া জাহাজ চলাচল করত।

এ বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দলে থাকা কক্সবাজার ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের (টুয়াক) জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি হোসাইনুল ইসলাম বাহাদুর বলেন, নাফ নদীতে নাব্যতাসংকট ও একাধিক বালুচর জেগে ওঠায় গত বছর পর্যটন মৌসুমের শুরু থেকে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। এ বছর যথাসময়ে জাহাজ চলাচলের অনুমতি পাওয়ায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী বলেন, সব দিক বিবেচনা করে এমভি বার আউলিয়াকে পর্যটক পরিবহনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে আবেদন অনুসারে অন্য জাহাজগুলো চলাচলের ব্যাপারে বিবেচনা করা হবে।

পর্যবেক্ষণ দলে আরও ছিলেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী, বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্যসচিব রায়হান উদ্দিন আহমেদ, পর্যটন উদ্যোক্তা তৌহিদুল ইসলাম তোহা, ট্যুর অপারেটর ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে পরীক্ষামূলক জাহাজ চলাচল শুরু

আপডেট সময় : ০১:০৭:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

প্রায় ছয় মাস বন্ধ থাকার পর পরীক্ষামূলকভাবে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে চলাচল শুরু করেছে এমভি বার আউলিয়া নামের একটি জাহাজ। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে টেকনাফের দমদমিয়া জেটি থেকে সেন্ট মার্টিনের উদ্দেশে ছেড়ে যায় জাহাজটি। এ সময় কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমদের নেতৃত্বে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের দেড় শতাধিক লোক জাহাজে যাত্রী হিসেবে ছিলেন।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আগামীকাল বুধবার সকাল সাড়ে নয়টায় টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাট থেকে পর্যটকবাহী জাহাজটি ছেড়ে যাবে। আবার বেলা সাড়ে তিনটায় সেন্ট মার্টিন থেকে টেকনাফের উদ্দেশে রওনা হবে। আগামীকাল ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে কক্সবাজারে আয়োজিত বিচ কার্নিভ্যাল কেন্দ্র করে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমেদ।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. নাসিম আহমেদ বলেন, নৌপথ পর্যবেক্ষণের জন্য জেলা প্রশাসনের দল নিয়ে সেন্ট মার্টিনে যাত্রা করেন তাঁরা। এ সময় উভয় পাড়ের জেটিঘাট, নাফ নদীর নাব্যতাসহ আনুষঙ্গিক নানা বিষয় খতিয়ে দেখা হয়েছে।

টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল শুরু হয় চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি। পরে ১৮ মার্চ থেকে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এ পথে জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেয়। ওই সময় টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন থেকে কেয়ারি সিন্দবাদ, কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, আটলান্টিক, শহীদ আব্দুস সালাম, এমভি পারিজাত, এমভি রাজ হংস, সুকান্ত বাবু, এমভি বে ক্রুজ এবং এমভি বার আউলিয়া জাহাজ চলাচল করত।

এ বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দলে থাকা কক্সবাজার ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশনের (টুয়াক) জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি হোসাইনুল ইসলাম বাহাদুর বলেন, নাফ নদীতে নাব্যতাসংকট ও একাধিক বালুচর জেগে ওঠায় গত বছর পর্যটন মৌসুমের শুরু থেকে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। এ বছর যথাসময়ে জাহাজ চলাচলের অনুমতি পাওয়ায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী বলেন, সব দিক বিবেচনা করে এমভি বার আউলিয়াকে পর্যটক পরিবহনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে আবেদন অনুসারে অন্য জাহাজগুলো চলাচলের ব্যাপারে বিবেচনা করা হবে।

পর্যবেক্ষণ দলে আরও ছিলেন টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আদনান চৌধুরী, বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্যসচিব রায়হান উদ্দিন আহমেদ, পর্যটন উদ্যোক্তা তৌহিদুল ইসলাম তোহা, ট্যুর অপারেটর ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রেজাউল করিম রেজা প্রমুখ।