ঢাকা ১২:০১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

জনসভায় যোগ দিতে বরগুনা থেকে চট্টগ্রামে ‘নৌকার মাঝি’ হুমায়ূন কবির

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:৫৫:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২৩ ৬৩ বার পড়া হয়েছে

তিনি পেশায় পরিবহন ব্যবসায়ী। বরগুনা জেলার কয়েকটি রুটে তাঁর বাস রয়েছে। রাজনীতি তাঁর নেশা। আওয়ামী লীগ অন্তপ্রাণ। এ কারণে দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার বড় বড় জনসভায় ছুটে যান মো. হুমায়ূন কবির।

নৌকা নিয়ে ছুটে যান এক জেলা থেকে অন্য জেলায়। চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেল উদ্বোধনের খবর শুনে তিন দিন আগে বরগুনা থেকে ছুটে আসেন তিনি। একটা পিকআপের ওপর কাঠের নৌকা বেঁধে তার ওপর বসেন হুমায়ূন কবির। এভাবেই তিনি জনসভায় আসেন।

হুমায়ূন কবিরকে পাওয়া যায় জনসভাস্থল কেইপিজেড মাঠের সামনের সড়কে। পিকআপের ওপর বাঁধা কাঠের নৌকায় তিনি বসে আছেন। সেখান থেকে জনসভার মঞ্চ দেখা যাচ্ছে। ছাউনি দেওয়া নৌকার একপাশে একটা বইঠাও আছে। ছাউনির নিচে মাদুর পাতা রয়েছে। সেখানেই তিনি বসেন ও ঘুমান।
পিকআপের চারপাশে ব্যানারে হুমায়ূন কবিরের পরিচয় লেখা রয়েছে। সেখানে তাঁর নামের পাশে ব্র্যাকেটে লেখা আছে—‘নৌকার মাঝি’। আরও লেখা আছে—‘বরগুনা জেলা যুবলীগের সহসভাপতি’ ও ‘বরগুনা জেলা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক’।

পিকআপের ভেতর একটা সিঁড়ি রয়েছে। ওই সিঁড়ি দিয়ে নৌকায় ওঠানামা করেন। হুমায়ূন কবিরের সঙ্গে কথা হয় নৌকাটির ওপর।

হুমায়ূন কবির বলেন, তিনি পারিবারিকভাবে আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তাঁর রক্তে বঙ্গবন্ধুপ্রীতি। তাঁর বাবা আবদুস সাত্তার মিয়া বরগুনা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ছিলেন। চার ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। সবাই আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। নিজে ১৯৯৯ সাল থেকে দুবার বরগুনা পৌরসভার কাউন্সিলর ছিলেন। শেখ হাসিনার বড় কোনো সভা সমাবেশের খবর পেলেই ছুটে যান তিনি।

চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেলের উদ্বোধনের খবর শোনার পর এখানে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা নেন। সে অনুযায়ী একটা পিকআপ ভাড়া করেন। সেটাতে তাঁর কাঠের নৌকাটি বাঁধেন। নৌকা বাঁধার জন্য স্থানীয়ভাবে লোহার ফ্রেম বানানো হয়। গাড়িচালক মেহেদী হাসান।

মেহেদী বলেন, ২৩ অক্টোবর তাঁরা তিনজন বরগুনা থেকে রওনা দেন। ২৪ অক্টোবর টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে হুমায়ূন কবির বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করেন। ২৫ অক্টোবর চট্টগ্রামে পৌঁছান। এরপর চলে যান আনোয়ারায়। সেখানে পিকআপে বাঁধা মাইকে প্রচারণা চালান হুমায়ূন কবির।
এর আগে হুমায়ূন কবির পদ্মা সেতু উদ্বোধনের সময়ও সেখানে ছুটে যান। এবার সঙ্গে নিয়ে এসেছেন তাঁর ভাইপো মো. স্বাধীনকে।

পঞ্চাশোর্ধ হুমায়ূন কবির বলেন, ‘৩০ বছর ধরে আওয়ামী লীগের সভা সমাবেশে যাচ্ছি। দূরের সমাবেশে কয়েক দিনের জন্য চলে যাই। গাড়িতে নৌকার মধ্যে থাকি। প্রচার করি। নিজের টাকা খরচ করে এ কাজ করি; তবে কোনো স্বীকৃতির জন্য নয়।’

বরগুনা থেকে রওনা হওয়ার আগে একবার নৌকা নিয়ে সারা শহর চক্কর দেন তিনি। হুমায়ূনের দুই ছেলে, দুই মেয়ে। রাজনীতিপাগল বাবার এ স্বভাব তাঁদের চিরচেনা। এ নিয়ে তাঁদের কোনো আপত্তি নেই বলেও জানান এই ‘নৌকার মাঝি’।

পিকআপের চালক মেহেদী হাসান এই প্রথম হুমায়ূনের সফরসঙ্গী হন। মেহেদী বলেন, ‘আমাকে প্রতিদিন হিসাবে দুই হাজার টাকা দেওয়ার কথা। ওনাকে বরগুনার সবাই চেনে। আমরা গাড়িতেই রাত্রি যাপন করি। খাওয়াদাওয়া হোটেলে। এভাবেই চলে যায় সময়।’

আজ জনসভা শেষে বিকেলের দিকে বরগুনার উদ্দেশে রওনা দেবেন হুমায়ূন কবির।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ডিবির হারুন বলেন, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাং সদস্যদের সঙ্গে জড়িত ৩৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছৈ। তাদের গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওয়ারী ও গুলশান বিভাগ। গ্রেফতারদের মধ্যে বেশিরভাগ কিশোর গ্যাং সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রয়েছে। তিনি জানান, গ্রেফতাররা বাড্ডা, ভাটারা, তুরাগ, তিনশ ফিট ও যাত্রাবাড়ীসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় টার্গেট করা ব্যক্তিদের ইভটিজিং বা কোনো সময় ধাক্কা দেওয়ার ছলে উত্ত্যক্ত করত। এরপর তারা ঘেরাও করে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে মোবাইলফোন এবং নারীদের কাছ থেকে সোনার অলঙ্কার ছিনিয়ে নিত। এ ছাড়া তারা ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও চুরির সঙ্গে জড়িত। এসব গ্যাং সদস্য মাদক কারবারের সঙ্গেও জড়িত। ডিবি হারুন জানান, গ্রেফতার কিশোর গ্যাং সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদে কিছু কথিত বড় ভাইয়ের নাম পাওয়া গেছে। বড় ভাইদেরও গ্রেফতার করা হবে। কিশোর গ্যাং সদস্যদের বিরুদ্ধে ডিবির প্রতিটি টিম কাজ করছে।

জনসভায় যোগ দিতে বরগুনা থেকে চট্টগ্রামে ‘নৌকার মাঝি’ হুমায়ূন কবির

আপডেট সময় : ১২:৫৫:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২৩

তিনি পেশায় পরিবহন ব্যবসায়ী। বরগুনা জেলার কয়েকটি রুটে তাঁর বাস রয়েছে। রাজনীতি তাঁর নেশা। আওয়ামী লীগ অন্তপ্রাণ। এ কারণে দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার বড় বড় জনসভায় ছুটে যান মো. হুমায়ূন কবির।

নৌকা নিয়ে ছুটে যান এক জেলা থেকে অন্য জেলায়। চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেল উদ্বোধনের খবর শুনে তিন দিন আগে বরগুনা থেকে ছুটে আসেন তিনি। একটা পিকআপের ওপর কাঠের নৌকা বেঁধে তার ওপর বসেন হুমায়ূন কবির। এভাবেই তিনি জনসভায় আসেন।

হুমায়ূন কবিরকে পাওয়া যায় জনসভাস্থল কেইপিজেড মাঠের সামনের সড়কে। পিকআপের ওপর বাঁধা কাঠের নৌকায় তিনি বসে আছেন। সেখান থেকে জনসভার মঞ্চ দেখা যাচ্ছে। ছাউনি দেওয়া নৌকার একপাশে একটা বইঠাও আছে। ছাউনির নিচে মাদুর পাতা রয়েছে। সেখানেই তিনি বসেন ও ঘুমান।
পিকআপের চারপাশে ব্যানারে হুমায়ূন কবিরের পরিচয় লেখা রয়েছে। সেখানে তাঁর নামের পাশে ব্র্যাকেটে লেখা আছে—‘নৌকার মাঝি’। আরও লেখা আছে—‘বরগুনা জেলা যুবলীগের সহসভাপতি’ ও ‘বরগুনা জেলা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক’।

পিকআপের ভেতর একটা সিঁড়ি রয়েছে। ওই সিঁড়ি দিয়ে নৌকায় ওঠানামা করেন। হুমায়ূন কবিরের সঙ্গে কথা হয় নৌকাটির ওপর।

হুমায়ূন কবির বলেন, তিনি পারিবারিকভাবে আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তাঁর রক্তে বঙ্গবন্ধুপ্রীতি। তাঁর বাবা আবদুস সাত্তার মিয়া বরগুনা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ছিলেন। চার ভাইয়ের মধ্যে তিনি বড়। সবাই আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। নিজে ১৯৯৯ সাল থেকে দুবার বরগুনা পৌরসভার কাউন্সিলর ছিলেন। শেখ হাসিনার বড় কোনো সভা সমাবেশের খবর পেলেই ছুটে যান তিনি।

চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেলের উদ্বোধনের খবর শোনার পর এখানে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা নেন। সে অনুযায়ী একটা পিকআপ ভাড়া করেন। সেটাতে তাঁর কাঠের নৌকাটি বাঁধেন। নৌকা বাঁধার জন্য স্থানীয়ভাবে লোহার ফ্রেম বানানো হয়। গাড়িচালক মেহেদী হাসান।

মেহেদী বলেন, ২৩ অক্টোবর তাঁরা তিনজন বরগুনা থেকে রওনা দেন। ২৪ অক্টোবর টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে হুমায়ূন কবির বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করেন। ২৫ অক্টোবর চট্টগ্রামে পৌঁছান। এরপর চলে যান আনোয়ারায়। সেখানে পিকআপে বাঁধা মাইকে প্রচারণা চালান হুমায়ূন কবির।
এর আগে হুমায়ূন কবির পদ্মা সেতু উদ্বোধনের সময়ও সেখানে ছুটে যান। এবার সঙ্গে নিয়ে এসেছেন তাঁর ভাইপো মো. স্বাধীনকে।

পঞ্চাশোর্ধ হুমায়ূন কবির বলেন, ‘৩০ বছর ধরে আওয়ামী লীগের সভা সমাবেশে যাচ্ছি। দূরের সমাবেশে কয়েক দিনের জন্য চলে যাই। গাড়িতে নৌকার মধ্যে থাকি। প্রচার করি। নিজের টাকা খরচ করে এ কাজ করি; তবে কোনো স্বীকৃতির জন্য নয়।’

বরগুনা থেকে রওনা হওয়ার আগে একবার নৌকা নিয়ে সারা শহর চক্কর দেন তিনি। হুমায়ূনের দুই ছেলে, দুই মেয়ে। রাজনীতিপাগল বাবার এ স্বভাব তাঁদের চিরচেনা। এ নিয়ে তাঁদের কোনো আপত্তি নেই বলেও জানান এই ‘নৌকার মাঝি’।

পিকআপের চালক মেহেদী হাসান এই প্রথম হুমায়ূনের সফরসঙ্গী হন। মেহেদী বলেন, ‘আমাকে প্রতিদিন হিসাবে দুই হাজার টাকা দেওয়ার কথা। ওনাকে বরগুনার সবাই চেনে। আমরা গাড়িতেই রাত্রি যাপন করি। খাওয়াদাওয়া হোটেলে। এভাবেই চলে যায় সময়।’

আজ জনসভা শেষে বিকেলের দিকে বরগুনার উদ্দেশে রওনা দেবেন হুমায়ূন কবির।