ঢাকা ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

চাঁপাইনবাবগঞ্জে তরুণ উদ্যোক্তা কে নির্যাতনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেল

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৪০:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪ ১১৬ বার পড়া হয়েছে

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে তরুণ উদ্যোক্তা ফেরদৌসকে নির্যাতনের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবে নির্যাতিত তরুণ উদ্যোক্তা ফেরদৌস সাংবাদিক সম্মেলন করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে ফেরদৌস জানান, গত ১৫ মার্চ শুক্রবার গোমস্তাপুর উপজেলার গোমস্তাপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের চাঁপাপাড়া গ্রামের জামে মসজিদের সাউন্ড সিস্টেম চালু প্রস্তাবকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের পোল্ট্রি মুরগী ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলমসহ তার ছেলে ফারুক হোসেন আমার গলায় বৈদ্যতিক তার পেচিয়ে হত্যা ও একটা ইট তুলে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এবং জাহাঙ্গীর ও তার সহযোগীরা মারতে মারতে অজ্ঞান করে ফেলে। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। সেখানে দীর্ঘ সময়ে চিকিৎসা করে বাড়ি আসলে আবারো প্রাণনাসের হুকমি দেয়। আমিসহ আমার পরিবারের জীবন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি। শুধু আমার পরিবার নয় জাহাঙ্গীর আলমের অত্যাচারের স্বীকার গ্রামের অনেকেই হয়েছে। কেউ মুখ খুলতে পারে না। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে তার বিচার চাই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, নির্যাতনের স্বীকার রেবিনা, বাবুল ও জাইদুল রহমান।

আব্দুল ওয়াহাব

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

চাঁপাইনবাবগঞ্জে তরুণ উদ্যোক্তা কে নির্যাতনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেল

আপডেট সময় : ১১:৪০:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে তরুণ উদ্যোক্তা ফেরদৌসকে নির্যাতনের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবে নির্যাতিত তরুণ উদ্যোক্তা ফেরদৌস সাংবাদিক সম্মেলন করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে ফেরদৌস জানান, গত ১৫ মার্চ শুক্রবার গোমস্তাপুর উপজেলার গোমস্তাপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের চাঁপাপাড়া গ্রামের জামে মসজিদের সাউন্ড সিস্টেম চালু প্রস্তাবকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের পোল্ট্রি মুরগী ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলমসহ তার ছেলে ফারুক হোসেন আমার গলায় বৈদ্যতিক তার পেচিয়ে হত্যা ও একটা ইট তুলে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এবং জাহাঙ্গীর ও তার সহযোগীরা মারতে মারতে অজ্ঞান করে ফেলে। পরে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। সেখানে দীর্ঘ সময়ে চিকিৎসা করে বাড়ি আসলে আবারো প্রাণনাসের হুকমি দেয়। আমিসহ আমার পরিবারের জীবন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি। শুধু আমার পরিবার নয় জাহাঙ্গীর আলমের অত্যাচারের স্বীকার গ্রামের অনেকেই হয়েছে। কেউ মুখ খুলতে পারে না। সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে তার বিচার চাই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, নির্যাতনের স্বীকার রেবিনা, বাবুল ও জাইদুল রহমান।

আব্দুল ওয়াহাব

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি