ঢাকা ১১:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

চট্টগ্রামে মাছের দাম বাড়তি, কমেছে সবজির দর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:১৮:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৩৮ বার পড়া হয়েছে

প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস মাছ। তবে চট্টগ্রামে নগরের বাজারগুলোতে মাছ কিনতে গিয়ে দাম শুনে কয়েকবার ভাবতে হচ্ছে ক্রেতাদের। চট্টগ্রামে গত এক মাসের ব্যবধানে দাম বেড়েছে প্রায় সব মাছের।

আজ সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার নগরের বহদ্দারহাট, চকবাজার ও আশপাশ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গত এক মাসে মাছভেদে প্রতি কেজিতে দাম বেড়েছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা। বিক্রেতাদের ভাষ্য, ঘাটের বাজারগুলো থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে তাঁদের। তাই বাজারে দাম বেশি।

আগস্ট মাসের শুরুতে বাজারে প্রতি কেজি রুই ও কাতলার দাম ছিল ২৭০ থেকে ৩২০ টাকা। সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম দিন মাঝারি আকারের রুই ও কাতলার দাম ৩৫০ টাকার আশপাশে। আকারে কিছুটা বড় মাছের দাম চাওয়া হচ্ছে ৩৮০ টাকা কেজি।

নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে পাঙাশ ও তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। গত এক মাসে এ দুই মাছের দামও বেড়েছে। শুক্রবার প্রতি কেজি পাঙাশ বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকার আশপাশে। এ ছাড়া মাঝারি আকারের তেলাপিয়ার দাম প্রতি কেজি ২৬০ থেকে ৩০০ টাকা। আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি কেজি পাঙাশ বিক্রি হয়েছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা এবং তেলাপিয়া বিক্রি হয়েছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকায়।

বহদ্দারহাট বাজারে চান্দগাঁও এলাকার বাসিন্দা মুহাম্মদ মাইনউদ্দিন বলেন, সাধারণ ক্রেতাদের কাছে পাঙাশ আর তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। অন্যান্য মাছের পাশাপাশি এসব মাছের দামও এখন বাড়তি।

অন্যান্য মাছের মধ্যে প্রতি কেজি মাঝারি আকারের ইলিশ (৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম প্রতিটি) বিক্রি হয়েছে ৯৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে। রুপচাঁদা ৬০০ থেকে ৮০০, লইট্টা ২২০ ও কোরাল ৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। মাসের ব্যবধানে এসব মাছের দামও বেড়েছে।

নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে পাঙাশ ও তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। গত এক মাসে এ দুই মাছের দামও বেড়েছে। শুক্রবার প্রতি কেজি পাঙাশ বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকার আশপাশে। এ ছাড়া মাঝারি আকারের তেলাপিয়ার দাম প্রতি কেজি ২৬০ থেকে ৩০০ টাকা। আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি কেজি পাঙাশ বিক্রি হয়েছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা এবং তেলাপিয়া বিক্রি হয়েছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকায়।

বহদ্দারহাট বাজারে চান্দগাঁও এলাকার বাসিন্দা মুহাম্মদ মাইনউদ্দিন বলেন, সাধারণ ক্রেতাদের কাছে পাঙাশ আর তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। অন্যান্য মাছের পাশাপাশি এসব মাছের দামও এখন বাড়তি।

অন্যান্য মাছের মধ্যে প্রতি কেজি মাঝারি আকারের ইলিশ (৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম প্রতিটি) বিক্রি হয়েছে ৯৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে। রুপচাঁদা ৬০০ থেকে ৮০০, লইট্টা ২২০ ও কোরাল ৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। মাসের ব্যবধানে এসব মাছের দামও বেড়েছে।

বাজারে ৫ টাকা কমে প্রতি কেজি ব্রয়লার ১৫৫ থেকে ১৬০ ও ২০ টাকা কমে সোনালি ২৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া মুরগির ডিম প্রতি হালি ৪৭ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

গত সপ্তাহের তুলনায় বাজারে কমেছে মিষ্টিকুমড়া, শসা, ঝিঙা, চিচিঙ্গা, বরবটি ও কাঁচা পেঁপের দাম। গত সপ্তাহে ঝিঙা ও চিচিঙ্গা বিক্রি হয়েছিল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা কেজি দরে। শুক্রবার এ তিন সবজি বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৭৫ থেকে ৮০ টাকায়।

  • এ ছাড়া ১০ টাকা কমে মিষ্টিকুমড়া, শসা ও কাঁচা পেঁপে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। ২০ টাকা কমে কাঁচা মরিচ ১৬০ ও টমেটো ১৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।নগরের রিয়াজউদ্দিন বাজারে পাইকারি সবজি বিক্রেতা নুরুল ইসলাম বলেন, বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে সবজির সরবরাহ বাড়ছে। গত সপ্তাহের তুলনায় সবজিভেদে প্রতি কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে পাইকারিতে। অধিকাংশ সবজি পাইকারিতে ৪০ থেকে ৬০ টাকায় নেমে এসেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

চট্টগ্রামে মাছের দাম বাড়তি, কমেছে সবজির দর

আপডেট সময় : ০৬:১৮:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস মাছ। তবে চট্টগ্রামে নগরের বাজারগুলোতে মাছ কিনতে গিয়ে দাম শুনে কয়েকবার ভাবতে হচ্ছে ক্রেতাদের। চট্টগ্রামে গত এক মাসের ব্যবধানে দাম বেড়েছে প্রায় সব মাছের।

আজ সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার নগরের বহদ্দারহাট, চকবাজার ও আশপাশ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গত এক মাসে মাছভেদে প্রতি কেজিতে দাম বেড়েছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা। বিক্রেতাদের ভাষ্য, ঘাটের বাজারগুলো থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে তাঁদের। তাই বাজারে দাম বেশি।

আগস্ট মাসের শুরুতে বাজারে প্রতি কেজি রুই ও কাতলার দাম ছিল ২৭০ থেকে ৩২০ টাকা। সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম দিন মাঝারি আকারের রুই ও কাতলার দাম ৩৫০ টাকার আশপাশে। আকারে কিছুটা বড় মাছের দাম চাওয়া হচ্ছে ৩৮০ টাকা কেজি।

নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে পাঙাশ ও তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। গত এক মাসে এ দুই মাছের দামও বেড়েছে। শুক্রবার প্রতি কেজি পাঙাশ বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকার আশপাশে। এ ছাড়া মাঝারি আকারের তেলাপিয়ার দাম প্রতি কেজি ২৬০ থেকে ৩০০ টাকা। আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি কেজি পাঙাশ বিক্রি হয়েছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা এবং তেলাপিয়া বিক্রি হয়েছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকায়।

বহদ্দারহাট বাজারে চান্দগাঁও এলাকার বাসিন্দা মুহাম্মদ মাইনউদ্দিন বলেন, সাধারণ ক্রেতাদের কাছে পাঙাশ আর তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। অন্যান্য মাছের পাশাপাশি এসব মাছের দামও এখন বাড়তি।

অন্যান্য মাছের মধ্যে প্রতি কেজি মাঝারি আকারের ইলিশ (৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম প্রতিটি) বিক্রি হয়েছে ৯৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে। রুপচাঁদা ৬০০ থেকে ৮০০, লইট্টা ২২০ ও কোরাল ৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। মাসের ব্যবধানে এসব মাছের দামও বেড়েছে।

নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে পাঙাশ ও তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। গত এক মাসে এ দুই মাছের দামও বেড়েছে। শুক্রবার প্রতি কেজি পাঙাশ বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকার আশপাশে। এ ছাড়া মাঝারি আকারের তেলাপিয়ার দাম প্রতি কেজি ২৬০ থেকে ৩০০ টাকা। আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি কেজি পাঙাশ বিক্রি হয়েছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা এবং তেলাপিয়া বিক্রি হয়েছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকায়।

বহদ্দারহাট বাজারে চান্দগাঁও এলাকার বাসিন্দা মুহাম্মদ মাইনউদ্দিন বলেন, সাধারণ ক্রেতাদের কাছে পাঙাশ আর তেলাপিয়ার চাহিদা বেশি। অন্যান্য মাছের পাশাপাশি এসব মাছের দামও এখন বাড়তি।

অন্যান্য মাছের মধ্যে প্রতি কেজি মাঝারি আকারের ইলিশ (৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম প্রতিটি) বিক্রি হয়েছে ৯৫০ থেকে ১ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে। রুপচাঁদা ৬০০ থেকে ৮০০, লইট্টা ২২০ ও কোরাল ৬৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। মাসের ব্যবধানে এসব মাছের দামও বেড়েছে।

বাজারে ৫ টাকা কমে প্রতি কেজি ব্রয়লার ১৫৫ থেকে ১৬০ ও ২০ টাকা কমে সোনালি ২৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া মুরগির ডিম প্রতি হালি ৪৭ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

গত সপ্তাহের তুলনায় বাজারে কমেছে মিষ্টিকুমড়া, শসা, ঝিঙা, চিচিঙ্গা, বরবটি ও কাঁচা পেঁপের দাম। গত সপ্তাহে ঝিঙা ও চিচিঙ্গা বিক্রি হয়েছিল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা কেজি দরে। শুক্রবার এ তিন সবজি বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৭৫ থেকে ৮০ টাকায়।

  • এ ছাড়া ১০ টাকা কমে মিষ্টিকুমড়া, শসা ও কাঁচা পেঁপে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। ২০ টাকা কমে কাঁচা মরিচ ১৬০ ও টমেটো ১৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।নগরের রিয়াজউদ্দিন বাজারে পাইকারি সবজি বিক্রেতা নুরুল ইসলাম বলেন, বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে সবজির সরবরাহ বাড়ছে। গত সপ্তাহের তুলনায় সবজিভেদে প্রতি কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে পাইকারিতে। অধিকাংশ সবজি পাইকারিতে ৪০ থেকে ৬০ টাকায় নেমে এসেছে।