ঢাকা ০২:৪১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

এমন শীত আরও কয়েক দিন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৭:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪ ২৩৮ বার পড়া হয়েছে

দিনভর সূর্যের দেখা নেই। কুয়াশায় ঢাকা চারদিক। শীতে জবুথবু অবস্থা খেটে খাওয়া মানুষের। আবহাওয়া অফিস বলছে, খুব শিগগির শীতের তীব্রতা কমার সম্ভাবনা নেই। গতকাল বেলা আড়াইটায় পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের জালালপুর এলাকায়ছবি: হাসান মাহমুদ
যাঁরা ভাবছেন শীতের তীব্রতা সামনে কমে আসবে, তাঁদের জন্য কিছুটা দুঃসংবাদ আছে। এই জানুয়ারি মাসের বাকি অর্ধেকটা সময় শীতের তীব্রতা খুব বেশি কমে আসার সম্ভাবনা তেমন নেই। এমনিতেই গড় তাপমাত্রা বিবেচনায় বছরের সবচেয়ে শীতলতম মাস জানুয়ারি, এর পরই ডিসেম্বর।

তবে এবার ডিসেম্বরে দেশের সব এলাকায় শীতের তীব্রতা ছিল না। বিশেষ করে রাজধানী ঢাকায় শীতের অনুভূতি ছিল তুলনামূলকভাবে কম। তবে এখন পরিস্থিতি বদলেছে। রাজধানী ঢাকায় দিনে দেড়–দুই ঘণ্টার বেশি রোদ থাকছে না—চার দিন ধরে এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অন্যদিকে দেশের উত্তরাঞ্চলের অনেক এলাকায় সারা দিনে একবারও ঠিকমতো সূর্যের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। তিন দিন ধরে পরিস্থিতি এমন, যেন ঘন কুয়াশার চাদর ঘিরে রেখেছে আশপাশ। শীতের কষ্ট থেকে রক্ষা পেতে উত্তরাঞ্চলের অনেক এলাকার মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সন্ধ্যার পর বাইরে কমই বের হচ্ছেন।

তীব্র শীতের সঙ্গে দেশের বেশির ভাগ এলাকায় রাতে ও ভোরের দিকে কুয়াশার দাপট অব্যাহত থাকবে। আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দমকা হাওয়া বা বৃষ্টি না নামলে ঘন কুয়াশা সরবে না। আর কুয়াশা না সরলে রোদ এসে শীতের দাপট কমাতে পারবে না। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে আকাশে মেঘ জমতে পারে। অনেক জায়গায় শুরু হতে পারে বৃষ্টি। বৃষ্টি চলতে পারে দু–তিন দিন। এরপর শীতের তীব্রতা কিছুটা কমতে পারে। তবে বৃষ্টি চলে যাওয়ার পর দিন ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য কিছুটা বাড়বে। তখন দিনে শীতের অনুভূতি কিছুটা কমে আসবে। তবে রাতে শীতের তীব্রতা এখনকার মতোই থাকতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

এমন শীত আরও কয়েক দিন

আপডেট সময় : ০৭:৫৭:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪

দিনভর সূর্যের দেখা নেই। কুয়াশায় ঢাকা চারদিক। শীতে জবুথবু অবস্থা খেটে খাওয়া মানুষের। আবহাওয়া অফিস বলছে, খুব শিগগির শীতের তীব্রতা কমার সম্ভাবনা নেই। গতকাল বেলা আড়াইটায় পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের জালালপুর এলাকায়ছবি: হাসান মাহমুদ
যাঁরা ভাবছেন শীতের তীব্রতা সামনে কমে আসবে, তাঁদের জন্য কিছুটা দুঃসংবাদ আছে। এই জানুয়ারি মাসের বাকি অর্ধেকটা সময় শীতের তীব্রতা খুব বেশি কমে আসার সম্ভাবনা তেমন নেই। এমনিতেই গড় তাপমাত্রা বিবেচনায় বছরের সবচেয়ে শীতলতম মাস জানুয়ারি, এর পরই ডিসেম্বর।

তবে এবার ডিসেম্বরে দেশের সব এলাকায় শীতের তীব্রতা ছিল না। বিশেষ করে রাজধানী ঢাকায় শীতের অনুভূতি ছিল তুলনামূলকভাবে কম। তবে এখন পরিস্থিতি বদলেছে। রাজধানী ঢাকায় দিনে দেড়–দুই ঘণ্টার বেশি রোদ থাকছে না—চার দিন ধরে এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অন্যদিকে দেশের উত্তরাঞ্চলের অনেক এলাকায় সারা দিনে একবারও ঠিকমতো সূর্যের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। তিন দিন ধরে পরিস্থিতি এমন, যেন ঘন কুয়াশার চাদর ঘিরে রেখেছে আশপাশ। শীতের কষ্ট থেকে রক্ষা পেতে উত্তরাঞ্চলের অনেক এলাকার মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সন্ধ্যার পর বাইরে কমই বের হচ্ছেন।

তীব্র শীতের সঙ্গে দেশের বেশির ভাগ এলাকায় রাতে ও ভোরের দিকে কুয়াশার দাপট অব্যাহত থাকবে। আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দমকা হাওয়া বা বৃষ্টি না নামলে ঘন কুয়াশা সরবে না। আর কুয়াশা না সরলে রোদ এসে শীতের দাপট কমাতে পারবে না। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে আকাশে মেঘ জমতে পারে। অনেক জায়গায় শুরু হতে পারে বৃষ্টি। বৃষ্টি চলতে পারে দু–তিন দিন। এরপর শীতের তীব্রতা কিছুটা কমতে পারে। তবে বৃষ্টি চলে যাওয়ার পর দিন ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য কিছুটা বাড়বে। তখন দিনে শীতের অনুভূতি কিছুটা কমে আসবে। তবে রাতে শীতের তীব্রতা এখনকার মতোই থাকতে পারে।