ঢাকা ০৫:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

‘ইমরান খানের স্ত্রী বুশরার জীবন ঝুঁকিতে’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৭:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৬২ বার পড়া হয়েছে

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্ত্রী বুশরা বিবির জীবন বানিগালার বাসভবনে ঝুঁকিতে রয়েছেন। এমন দাবি জানিয়েছেন তার বোন মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো। দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার পর তাকে এই বাড়িতে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

মরিয়াম রিয়াজ দাবি করেছেন, সেখানে জেল কর্তৃপক্ষ তার সঙ্গে বাজে আচরণ করছে। তিনি অসুস্থ হলেও কোনো চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে দেওয়া হচ্ছে না। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জিও নিউজ। দুর্নীতির মামলায় ইমরান খানের সঙ্গে অভিযুক্ত হয়েছেন বুশরা বিবি।

এই মামলায় তাদের ১৪ বছর করে জেল দেওয়া হয়েছে। ইমরান খান আদিয়ালা জেলে বন্দি আছেন। অন্যদিকে তার ইসলামাবাদের বাসভবন বানিগালায় গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বুশরা বিবিকে।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ— রাষ্ট্রীয় উপহার তারা কম দাম দেখিয়ে কিনে নিয়েছেন এবং তার মধ্য দিয়ে লাভবান হয়েছেন। মরিয়াম রিয়াজ বলেন, বুশরার সঙ্গে জেল কর্তৃপক্ষের আচরণ নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন।

তিনি আরও বলেন, বুশরার নিরাপত্তার দায়িত্ব আদিয়ালা জেলের সুপারিনটেন্ডেন্টের। কিন্তু তথ্যপ্রমাণ দেখাচ্ছে যে, কর্তৃপক্ষ তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বুশরা বিবির ছোটবোন মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো। তিনি শিক্ষাবিষয়ক একজন পেশাদার। বসবাস করেন দুবাইয়ে।

বলেছেন, কমপক্ষে ১০ দিন পর তার বোনের মেয়েকে বুশরার সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়েছে। ৬ দিন আগে বুশরাকে কিছু উদ্ভট, খুব বাজে স্বাদযুক্ত খাবার দেওয়া হয়েছিল। এতে তার গলা জ্বলে গেছে। পাকস্থলীতে প্রদাহ দেখা দিয়েছে। এর ফলে গত ৬ দিন ধরে তিনি কিছু খেতে পারছেন না।

এতে দুর্বল ও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। যে নারী পুলিশ তাকে ওই খাবার দিয়েছিল। এর পরই তাকে বদলি করা হয়েছে। কিন্তু বুশরা বিবির কি হয়েছে তা পরীক্ষা করার জন্য কোনো ডাক্তার ডাকা হয়নি। এতে বিলম্ব করার অর্থ হলো তার বোনকে যে খাবার দেওয়া হয়েছে তা যেন শরীরে ভালোভাবে মিশে যায়।

এক্সে দেওয়া এক পোস্টে মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো এসব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বলেন, পরামর্শের জন্য কোনো ডাক্তার ডাকা হয়নি। তাকে গ্রেফতারের সময় বুশরা বিবি খুবই সুস্থ ছিলেন। ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা অন্য কোনো রোগ ছিল না তার। তার আশঙ্কা, তাকে ধীরে ধীরে দুর্বল করে দেওয়া হবে।

পাকিস্তান

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

‘ইমরান খানের স্ত্রী বুশরার জীবন ঝুঁকিতে’

আপডেট সময় : ০৩:৪৭:২৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের স্ত্রী বুশরা বিবির জীবন বানিগালার বাসভবনে ঝুঁকিতে রয়েছেন। এমন দাবি জানিয়েছেন তার বোন মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো। দুর্নীতির মামলায় অভিযুক্ত হওয়ার পর তাকে এই বাড়িতে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

মরিয়াম রিয়াজ দাবি করেছেন, সেখানে জেল কর্তৃপক্ষ তার সঙ্গে বাজে আচরণ করছে। তিনি অসুস্থ হলেও কোনো চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে দেওয়া হচ্ছে না। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জিও নিউজ। দুর্নীতির মামলায় ইমরান খানের সঙ্গে অভিযুক্ত হয়েছেন বুশরা বিবি।

এই মামলায় তাদের ১৪ বছর করে জেল দেওয়া হয়েছে। ইমরান খান আদিয়ালা জেলে বন্দি আছেন। অন্যদিকে তার ইসলামাবাদের বাসভবন বানিগালায় গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বুশরা বিবিকে।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ— রাষ্ট্রীয় উপহার তারা কম দাম দেখিয়ে কিনে নিয়েছেন এবং তার মধ্য দিয়ে লাভবান হয়েছেন। মরিয়াম রিয়াজ বলেন, বুশরার সঙ্গে জেল কর্তৃপক্ষের আচরণ নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন।

তিনি আরও বলেন, বুশরার নিরাপত্তার দায়িত্ব আদিয়ালা জেলের সুপারিনটেন্ডেন্টের। কিন্তু তথ্যপ্রমাণ দেখাচ্ছে যে, কর্তৃপক্ষ তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হচ্ছে।

উল্লেখ্য, বুশরা বিবির ছোটবোন মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো। তিনি শিক্ষাবিষয়ক একজন পেশাদার। বসবাস করেন দুবাইয়ে।

বলেছেন, কমপক্ষে ১০ দিন পর তার বোনের মেয়েকে বুশরার সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হয়েছে। ৬ দিন আগে বুশরাকে কিছু উদ্ভট, খুব বাজে স্বাদযুক্ত খাবার দেওয়া হয়েছিল। এতে তার গলা জ্বলে গেছে। পাকস্থলীতে প্রদাহ দেখা দিয়েছে। এর ফলে গত ৬ দিন ধরে তিনি কিছু খেতে পারছেন না।

এতে দুর্বল ও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। যে নারী পুলিশ তাকে ওই খাবার দিয়েছিল। এর পরই তাকে বদলি করা হয়েছে। কিন্তু বুশরা বিবির কি হয়েছে তা পরীক্ষা করার জন্য কোনো ডাক্তার ডাকা হয়নি। এতে বিলম্ব করার অর্থ হলো তার বোনকে যে খাবার দেওয়া হয়েছে তা যেন শরীরে ভালোভাবে মিশে যায়।

এক্সে দেওয়া এক পোস্টে মরিয়াম রিয়াজ ওয়াত্তো এসব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। বলেন, পরামর্শের জন্য কোনো ডাক্তার ডাকা হয়নি। তাকে গ্রেফতারের সময় বুশরা বিবি খুবই সুস্থ ছিলেন। ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা অন্য কোনো রোগ ছিল না তার। তার আশঙ্কা, তাকে ধীরে ধীরে দুর্বল করে দেওয়া হবে।

পাকিস্তান