ঢাকা ১১:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৫ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে অ্যান্টার্কটিকার বরফস্তর,বিজ্ঞানীদের উদ্বেগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:২৩:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ৪২ বার পড়া হয়েছে

অ্যান্টার্কটিকায় সাগরের বরফস্তর টানা তিন বছর ধরে ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এ প্রবণতা পৃথিবীতে জীবনধারণের ওপর গভীর প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন তাঁরা। সেই সঙ্গে এ ঘটনায় বিজ্ঞানীরা ‘খুবই উদ্বিগ্ন’ বলেও জানিয়েছেন।

পৃথিবীর সর্বদক্ষিণের এই মহাদেশের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে বিজ্ঞানী মিগুয়েল অ্যাঞ্জেল দ্য পাবলো ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, দৃশ্যত মানুষ এ নিয়ে সতর্কবার্তা গায়ে লাগাচ্ছে না।

অ্যান্টার্কটিকার সাউথ শেটল্যান্ডের লিভিংস্টোন আইল্যান্ড থেকে বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্পেনের এই ভূতত্ত্ববিদ বলেন, ‘আমরা (বিজ্ঞানীরা) খুবই উদ্বিগ্ন। কেননা, আমরা নিজেরা কীভাবে এর সমাধান করব, সেই বিষয় দেখতে পাচ্ছি না।’
মিগুয়েল অ্যাঞ্জেল আরও বলেন, ‘যা ঘটছে, সে সম্পর্কে সমাজকে সচেতন করতে আমরা যত সতর্কবার্তাই পাঠাই না কেন, মনে হচ্ছে তা শোনা হচ্ছে না। প্রমাণ থাকার পরও আমরা যেন শুধু সতর্ককারীই।’

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল স্নো অ্যান্ড আইস ডেটা সেন্টার (এনএসআইডিসি) গত বুধবার জানিয়েছে, অ্যান্টার্কটিক সাগরের ন্যূনতম বরফের বিস্তৃতি ২০ লাখ বর্গকিলোমিটারের নিচে নেমে এসেছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে টানা তিন বছরের মতো এটি দেখা গেছে।

টানা ৩ বছর অ্যান্টার্কটিকার ন্যূনতম বরফের স্তর এভাবে কমে যাওয়ার এই অবস্থা গত ৪৬ বছরের মধ্যে একটি রেকর্ড।
বিজ্ঞানীরা বলছেন, সমুদ্রের বরফ গলে যাওয়াটা মহাসমুদ্রের স্তরের ওপর তাৎক্ষণিক কোনো প্রভাব ফেলে না। তবে সমুদ্রের স্বাভাবিক পানির স্তর সূর্যের রশ্মি যতটা প্রতিফলিত করতে পারে, সাদা বরফের স্তর তার চেয়ে বেশি করতে পারে। বরফের স্তর কমলে তা বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করবে। পর্যায়ক্রমে এটি সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বিপর্যয়কর পর্যায়ে পৌঁছানোর কারণ হয়ে উঠতে পারে।

দ্য পাবলো বলেন, ‘আমরা যদি পৃথিবী নামের এই গ্রহের জনবসতিপূর্ণ এলাকা থেকে বহুদূরের কোথাও থাকি, তবু অ্যান্টার্কটিকায় যা ঘটছে, বাস্তবে তা পৃথিবীর বাকি সব অংশের ওপরই প্রভাব ফেলবে।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, বিশ্বের তাপমাত্রা এরই মধ্যে সার্বিকভাবে প্রাক্‌-শিল্পস্তরের চেয়ে ১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। ২০১৫ সালের প্যারিস চুক্তিতে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির জন্য দায়ী গ্যাসের নিঃসরণ কমিয়ে পৃথিবীর তাপমাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমিত রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

দ্য পাবলো বলেন, ‘নিজেদের কাছে আমাদের এ প্রশ্ন করতে হবে যে আমরা যেভাবে চলছি, তা আসলেই কি ঠিক আছে? কেননা, পরিশেষে আমরা আমাদের এ গ্রহকে হারাব (বাসযোগ্যতা হারাব)।’ আমাদের বসবাস করার মতো দ্বিতীয় কোনো পৃথিবী নেই বলেও সতর্ক করে দিন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ডিবির হারুন বলেন, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাং সদস্যদের সঙ্গে জড়িত ৩৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছৈ। তাদের গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওয়ারী ও গুলশান বিভাগ। গ্রেফতারদের মধ্যে বেশিরভাগ কিশোর গ্যাং সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় মামলা রয়েছে। তিনি জানান, গ্রেফতাররা বাড্ডা, ভাটারা, তুরাগ, তিনশ ফিট ও যাত্রাবাড়ীসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় টার্গেট করা ব্যক্তিদের ইভটিজিং বা কোনো সময় ধাক্কা দেওয়ার ছলে উত্ত্যক্ত করত। এরপর তারা ঘেরাও করে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে মোবাইলফোন এবং নারীদের কাছ থেকে সোনার অলঙ্কার ছিনিয়ে নিত। এ ছাড়া তারা ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও চুরির সঙ্গে জড়িত। এসব গ্যাং সদস্য মাদক কারবারের সঙ্গেও জড়িত। ডিবি হারুন জানান, গ্রেফতার কিশোর গ্যাং সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদে কিছু কথিত বড় ভাইয়ের নাম পাওয়া গেছে। বড় ভাইদেরও গ্রেফতার করা হবে। কিশোর গ্যাং সদস্যদের বিরুদ্ধে ডিবির প্রতিটি টিম কাজ করছে।

ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে অ্যান্টার্কটিকার বরফস্তর,বিজ্ঞানীদের উদ্বেগ

আপডেট সময় : ১১:২৩:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

অ্যান্টার্কটিকায় সাগরের বরফস্তর টানা তিন বছর ধরে ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এ প্রবণতা পৃথিবীতে জীবনধারণের ওপর গভীর প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছেন তাঁরা। সেই সঙ্গে এ ঘটনায় বিজ্ঞানীরা ‘খুবই উদ্বিগ্ন’ বলেও জানিয়েছেন।

পৃথিবীর সর্বদক্ষিণের এই মহাদেশের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে বিজ্ঞানী মিগুয়েল অ্যাঞ্জেল দ্য পাবলো ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, দৃশ্যত মানুষ এ নিয়ে সতর্কবার্তা গায়ে লাগাচ্ছে না।

অ্যান্টার্কটিকার সাউথ শেটল্যান্ডের লিভিংস্টোন আইল্যান্ড থেকে বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্পেনের এই ভূতত্ত্ববিদ বলেন, ‘আমরা (বিজ্ঞানীরা) খুবই উদ্বিগ্ন। কেননা, আমরা নিজেরা কীভাবে এর সমাধান করব, সেই বিষয় দেখতে পাচ্ছি না।’
মিগুয়েল অ্যাঞ্জেল আরও বলেন, ‘যা ঘটছে, সে সম্পর্কে সমাজকে সচেতন করতে আমরা যত সতর্কবার্তাই পাঠাই না কেন, মনে হচ্ছে তা শোনা হচ্ছে না। প্রমাণ থাকার পরও আমরা যেন শুধু সতর্ককারীই।’

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল স্নো অ্যান্ড আইস ডেটা সেন্টার (এনএসআইডিসি) গত বুধবার জানিয়েছে, অ্যান্টার্কটিক সাগরের ন্যূনতম বরফের বিস্তৃতি ২০ লাখ বর্গকিলোমিটারের নিচে নেমে এসেছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে টানা তিন বছরের মতো এটি দেখা গেছে।

টানা ৩ বছর অ্যান্টার্কটিকার ন্যূনতম বরফের স্তর এভাবে কমে যাওয়ার এই অবস্থা গত ৪৬ বছরের মধ্যে একটি রেকর্ড।
বিজ্ঞানীরা বলছেন, সমুদ্রের বরফ গলে যাওয়াটা মহাসমুদ্রের স্তরের ওপর তাৎক্ষণিক কোনো প্রভাব ফেলে না। তবে সমুদ্রের স্বাভাবিক পানির স্তর সূর্যের রশ্মি যতটা প্রতিফলিত করতে পারে, সাদা বরফের স্তর তার চেয়ে বেশি করতে পারে। বরফের স্তর কমলে তা বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করবে। পর্যায়ক্রমে এটি সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বিপর্যয়কর পর্যায়ে পৌঁছানোর কারণ হয়ে উঠতে পারে।

দ্য পাবলো বলেন, ‘আমরা যদি পৃথিবী নামের এই গ্রহের জনবসতিপূর্ণ এলাকা থেকে বহুদূরের কোথাও থাকি, তবু অ্যান্টার্কটিকায় যা ঘটছে, বাস্তবে তা পৃথিবীর বাকি সব অংশের ওপরই প্রভাব ফেলবে।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, বিশ্বের তাপমাত্রা এরই মধ্যে সার্বিকভাবে প্রাক্‌-শিল্পস্তরের চেয়ে ১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। ২০১৫ সালের প্যারিস চুক্তিতে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির জন্য দায়ী গ্যাসের নিঃসরণ কমিয়ে পৃথিবীর তাপমাত্রা ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমিত রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

দ্য পাবলো বলেন, ‘নিজেদের কাছে আমাদের এ প্রশ্ন করতে হবে যে আমরা যেভাবে চলছি, তা আসলেই কি ঠিক আছে? কেননা, পরিশেষে আমরা আমাদের এ গ্রহকে হারাব (বাসযোগ্যতা হারাব)।’ আমাদের বসবাস করার মতো দ্বিতীয় কোনো পৃথিবী নেই বলেও সতর্ক করে দিন তিনি।