ঢাকা ০১:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

আসামিকে দেখতে গিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে মারধর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:১১:৩৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১০৫ বার পড়া হয়েছে

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানায় গ্রেফতার হওয়া আসামিকে দেখতে গিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে মারধর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। শিবগঞ্জ থানা পুলিশের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক নারী। বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা শহরের একটি হোটেলে এই সংবাদ সম্মেলন করেন শিবগঞ্জ উপজেলার ওর গ্রামের আব্দুল মজিদ এর মেয়ে শিউলি খাতুন। সংবাদ সম্মেলনে ওই নারী অভিযোগ করে বলেন গত বুধবার বোনের মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে ইমনকে একটি মামলায় আটক করলে মা ও বোনসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য থানায় দেখতে যায়। ইমন মানসিক ভারসাম্যহীন এ বিষয়টি পুলিশকে বোঝাতে তার চিকিৎসা পত্র দেখতে গেলে তা না দেখে উল্টো পুলিশ কিপ্ত হয়ে মারধর ও নির্যাতন শুরু করে। শিবগঞ্জ থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহমেদের নির্দেশে এই দিতে পুলিশ আমাকে আমার বোন ও মাকে বেধড়ক মারধর করেন। এতে শরীরের বিভিন্ন অংশ জখম হয় এবং গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি আরো বলেন পুরোপুরি সুস্থ না হলেও আমাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে গিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয় পরে আমি জামিনে মুক্তি পাই আরো উপস্থিত ছিলেন শিউলি খাতুনের মা সালেহা বেগম বোনসহ পরিবারের সদস্যরা। মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে শিবগঞ্জ থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহমেদ বলেন গ্রেপ্তারকৃত আসামিকে দেখতে এসে থানায় হট্টগোল করে ওই নারী। এছাড়াও পুলিশকে গালিগালাজ করে ও অশ্লীল ভাষায় কথা বলে। এমনকি থানা চত্বরে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা করায়। আত্মহত্যা চেষ্টা করায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আসামিকে দেখতে গিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে মারধর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ

আপডেট সময় : ০১:১১:৩৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানায় গ্রেফতার হওয়া আসামিকে দেখতে গিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে মারধর নির্যাতন ও মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। শিবগঞ্জ থানা পুলিশের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক নারী। বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা শহরের একটি হোটেলে এই সংবাদ সম্মেলন করেন শিবগঞ্জ উপজেলার ওর গ্রামের আব্দুল মজিদ এর মেয়ে শিউলি খাতুন। সংবাদ সম্মেলনে ওই নারী অভিযোগ করে বলেন গত বুধবার বোনের মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে ইমনকে একটি মামলায় আটক করলে মা ও বোনসহ পরিবারের কয়েকজন সদস্য থানায় দেখতে যায়। ইমন মানসিক ভারসাম্যহীন এ বিষয়টি পুলিশকে বোঝাতে তার চিকিৎসা পত্র দেখতে গেলে তা না দেখে উল্টো পুলিশ কিপ্ত হয়ে মারধর ও নির্যাতন শুরু করে। শিবগঞ্জ থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহমেদের নির্দেশে এই দিতে পুলিশ আমাকে আমার বোন ও মাকে বেধড়ক মারধর করেন। এতে শরীরের বিভিন্ন অংশ জখম হয় এবং গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি আরো বলেন পুরোপুরি সুস্থ না হলেও আমাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে গিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয় পরে আমি জামিনে মুক্তি পাই আরো উপস্থিত ছিলেন শিউলি খাতুনের মা সালেহা বেগম বোনসহ পরিবারের সদস্যরা। মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে শিবগঞ্জ থানার ওসি চৌধুরী জোবায়ের আহমেদ বলেন গ্রেপ্তারকৃত আসামিকে দেখতে এসে থানায় হট্টগোল করে ওই নারী। এছাড়াও পুলিশকে গালিগালাজ করে ও অশ্লীল ভাষায় কথা বলে। এমনকি থানা চত্বরে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা করায়। আত্মহত্যা চেষ্টা করায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে