ঢাকা ০৬:০১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

আজ সোমবার পয়লা মহররম,কী এর ইতিহাস ও তাৎপর্য?

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৪২:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪ ১১ বার পড়া হয়েছে

বিদায় নিয়েছে আরবি বছর ১৪৪৫। আজ সোমবার পয়লা মহররম। শুরু হলো হিজরি নববর্ষ ১৪৪৬। বাংলাদেশের আকাশে রোববার সন্ধ্যায় মহররম মাসের চাঁদ দেখা গেছে। আগামী ১৭ জুলাই (বুধবার) সারা দেশে পালিত হবে পবিত্র আশুরা।

বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হিজরতের ঘটনাকে কেন্দ্র করেই হিজরি সনের শুভ সূচনা হয়েছিল। তাই মুসলমান এবং আরব বিশ্বে হিজরি নববর্ষ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যে দাপ্তরিক কাজকর্ম হয় আরবি ক্যালেন্ডার অনুসরণ করে।

পবিত্র কুরআনুল কারিম ও হাদিস শরিফে মহররম মাসকে অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ বলা হয়েছে। কুরআনের ভাষায় এটি সম্মানিত চার মাসের ‘আরবাআতুন হুরুম’ অন্যতম।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ত্যাগ ও কুরবানির ঐতিহাসিক স্মৃতি স্মারক হিজরি (আরবি) সন। ইসলামের প্রচার, প্রসার এবং বিজয় কেতন উড্ডীনে হিজরি সনের গুরুত্ব ও তাত্পর্য অত্যধিক। ইসলামের শত্রুরা বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও ইসলামকে পৃথিবী থেকে চিরতরে সরিয়ে দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছিল। আল্লাহর নির্দেশে বিশ্বনবী দিন প্রচারে প্রিয় মাতৃভূমি মক্কা ত্যাগ করে ইয়াসরিবে (মাদিনা মুনাওয়ারায়) হিজরত করেন। যাকে কেন্দ্র করেই আজকের হিজরি সন। হিজরি বছরের প্রথম মাস মহরম ও শেষ মাস জিলহজ অনেক ফজিলত ও মর্যাদার মাস। শরিয়তের দৃষ্টিতে মহরম মাসটি যেমন অনেক তাত্পর্যপূর্ণ, তেমনি এ মাসে সংঘটিত ঐতিহাসিক ঘটনার বিবরণও অনেক দীর্ঘ। ইতিহাসের এক জ্বলন্ত সাক্ষী এ মহরম মাস। ইসলামের অনেক ঐতিহাসিক ঘটনার সূত্রপাত হয় এ মাসে।

অনেকেই আশুরার ঐতিহ্য বলতে রসুলুল্লাহ (স.)-এর প্রিয়তম দৌহিত্র হজরত হুসাইন (রা.)-এর শাহাদাত ও নবি পরিবারের কয়েক জন সম্মানিত সদস্যের রক্তে রঞ্জিত কারবালার ইতিহাসকেই বুঝে থাকে। বাস্তবতা হলো—হজরত হুসাইন (রা.)-এর মর্মান্তিক শাহাদতের ঘটনার অনেক আগে থেকেই আশুরা অনেক তাত্পর্যপূর্ণ ও রহস্যঘেরা দিন। কারণ কারবালার যুদ্ধ সংঘটিত হয় ৬১ হিজরির ১০ মহরম। তারও বহু আগে ১০ মহররম হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ও তার সাথিদের ফেরাউন ও তার সৈন্যদের থেকে মুক্তি পাওয়ার ঘটনা; যেখানে দরিয়ায় রাস্তা বানিয়ে আল্লাহ তাআলা তাদের নিরাপদে পৌঁছে দিয়েছেন। এই রাস্তা দিয়ে অতিক্রম করার সময় ফেরাউন ও তার সৈন্যদের দরিয়ায় ডুবিয়ে ধ্বংস করার ঘটনা ঘটে ১০ মহরম। হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ফেরাউনের হাত থেকে আশুরার দিন মুক্তি পান।

হিজরি সন গণনার ইতিহাস ও তাৎপর্য

রাসুল সা. ও তার সঙ্গীদের মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের ঐতিহাসিক ঘটনাকে স্মরণীয় করে রাখার জন্যই আরবি মহররম মাসকে হিজরি সনের প্রথম মাস ধরে সাল গণনার শুরু হয়। আল্লাহর নির্দেশ পালনার্থে তথা দ্বীনের স্বার্থে পবিত্র মক্কা থেকে মদিনায় রাসুল সা. ও তার সাহাবিদের হিজরতের বছর থেকেই হিজরি সনের সূচনা হয়।

খলিফা হজরত ওমর ফারুক রা. -এর শাসনামলে ১৬ হিজরি সনে প্রখ্যাত সাহাবি হজরত আবু মূসা আশআরি রা. ইরাক ও কুফার গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। একদা হজরত আবু মূসা আশআরি রা. খলিফা ওমর রা.-এর খেদমতে এ মর্মে পত্র লিখেন যে, আপনার পক্ষ থেকে পরামর্শ কিংবা নির্দেশ সংবলিত যেসব চিঠি আমাদের কাছে পৌঁছে তাতে দিন, মাস, কাল, তারিখ ইত্যাদি না থাকার কারণে কোন চিঠি কোন দিনের তা নিরূপণ করা আমাদের জন্য সম্ভব হয় না। এতে করে আমাদের নির্দেশ কার্যকর করতে সমস্যা হয়। চিঠির ধারাবাহিকতা না পেয়ে আমরা অনেক সময় বিব্রত বোধ করি।

হজরত আবু মূসা আশআরির চিঠি পেয়ে হজরত উমর রা. এ মর্মে পরামর্শসভার আহ্বান করেন যে, এখন থেকে একটি ইসলামী তারিখ প্রবর্তন করতে হবে। ওই পরামর্শসভায় হজরত উসমান রা., হজরত আলী রা. সহ বড় বড় অনেক সাহাবি উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত সকলের পরামর্শ ও মতামতের ভিত্তিতে ওই সভায় ওমর রা. সিদ্ধান্ত দেন ইসলামী সন প্রবর্তনের। তবে কোন মাস থেকে বর্ষের সূচনা করা হবে তা নিয়ে পরস্পরের মধ্যে মতভেদ দেখা যায়।

কেউ কেউ এ মত পোষণ করেন- রাসূল সা.- এর জন্মের মাস রবিউল আওয়াল থেকে বর্ষ শুরু করার। আবার কেউ কেউ মত দেন রাসুলের ওফাতের মাস থেকে বর্ষ শুরু করা হোক। অন্যদের মতে, রাসূল সা.-এর হিজরতের মাস থেকে বর্ষ করা হোক।

এভাবে নানা মতামত আলোচিত হওয়ার পর হজরত উমর রা. বললেন, হুজুর সা.-এর জন্মের মাস থেকে হিজরি সনের গণনা শুরু করা যাবে না। কারণ খ্রিষ্টান সম্প্রদায় হজরত ঈসা আ.-এর জন্মের মাস থেকেই খ্রিষ্টাব্দের গণনা শুরু করেছিল। তাই রাসূল সা.-এর জন্মের মাস থেকে সূচনা করা হলে বাহ্যত খ্রিষ্টানদের অনুসরণ ও সদৃশতা হয়ে যায়, যা মুসলমানদের জন্য পরিত্যাজ্য।

এ সম্পর্কে রাসুল বলেন- ‘তোমরা ইহুদি-খ্রিষ্টানদের বিরোধিতা করো’ (বুখারি ও আবু দাউদ শরিফ)।

অপর দিকে, হুজুর সা.-এর ওফাত দিবসের মাস থেকেও গণনা শুরু করা যাবে না, কারণ এতে হুজুর সা.-এর মৃত্যু ব্যথা আমাদের মাঝে বারবার উত্থিত হবে। পাশাপাশি অজ্ঞ যুগের মৃত্যুও শোক পালনের ইসলামবিরোধী একটি কুপ্রথারই পুনরুজ্জীবন ঘটবে।

হজরত ওমর রা.-এর দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যের সঙ্গে হজরত উসমান রা. ও হজরত আলী রা. একবাক্যে সহমত পোষণ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওমর ফারুক রা. হিজরতের বছর থেকেই ইসলামী দিনপঞ্জি গণনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় হিজরতের ১৬ বছর পর ১০ জমাদিউল উলা ৬৩৮ খ্রিষ্টাব্দে।

হিজরি সন হচ্ছে মুসলমানদের সন। তাই প্রত্যেক মুসলমানের উচিত এ সনের অনুসরণ করা। এ ক্ষেত্রে উদাসীনতা করা উচিৎ নয়। ইসলামী ফিকাহবিদরা চান্দ্রবর্ষের হিসাব রাখাকে মুসলমানদের জন্য ফরজে কিফায়া বলেছেন। অর্থাৎ কেউ কেউ এর হিসাব রাখলে সবার দায়িত্ব আদায় হয়ে যাবে। কিন্তু সবাই যদি এ বিষয়ে উদাসীনতা দেখায় তাহলে প্রত্যেক মুসলমানকে গুনাহগার হতে হবে। চান্দ্রমাসের হিসাবের অনুসরণ নবী সা. ও খোলাফায়ে রাশেদার সুন্নত। যাদের অনুসরণ আমাদের জন্য পুণ্যময় ও কল্যাণকর আমল।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আজ সোমবার পয়লা মহররম,কী এর ইতিহাস ও তাৎপর্য?

আপডেট সময় : ১১:৪২:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪

বিদায় নিয়েছে আরবি বছর ১৪৪৫। আজ সোমবার পয়লা মহররম। শুরু হলো হিজরি নববর্ষ ১৪৪৬। বাংলাদেশের আকাশে রোববার সন্ধ্যায় মহররম মাসের চাঁদ দেখা গেছে। আগামী ১৭ জুলাই (বুধবার) সারা দেশে পালিত হবে পবিত্র আশুরা।

বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হিজরতের ঘটনাকে কেন্দ্র করেই হিজরি সনের শুভ সূচনা হয়েছিল। তাই মুসলমান এবং আরব বিশ্বে হিজরি নববর্ষ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যে দাপ্তরিক কাজকর্ম হয় আরবি ক্যালেন্ডার অনুসরণ করে।

পবিত্র কুরআনুল কারিম ও হাদিস শরিফে মহররম মাসকে অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ বলা হয়েছে। কুরআনের ভাষায় এটি সম্মানিত চার মাসের ‘আরবাআতুন হুরুম’ অন্যতম।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ত্যাগ ও কুরবানির ঐতিহাসিক স্মৃতি স্মারক হিজরি (আরবি) সন। ইসলামের প্রচার, প্রসার এবং বিজয় কেতন উড্ডীনে হিজরি সনের গুরুত্ব ও তাত্পর্য অত্যধিক। ইসলামের শত্রুরা বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও ইসলামকে পৃথিবী থেকে চিরতরে সরিয়ে দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছিল। আল্লাহর নির্দেশে বিশ্বনবী দিন প্রচারে প্রিয় মাতৃভূমি মক্কা ত্যাগ করে ইয়াসরিবে (মাদিনা মুনাওয়ারায়) হিজরত করেন। যাকে কেন্দ্র করেই আজকের হিজরি সন। হিজরি বছরের প্রথম মাস মহরম ও শেষ মাস জিলহজ অনেক ফজিলত ও মর্যাদার মাস। শরিয়তের দৃষ্টিতে মহরম মাসটি যেমন অনেক তাত্পর্যপূর্ণ, তেমনি এ মাসে সংঘটিত ঐতিহাসিক ঘটনার বিবরণও অনেক দীর্ঘ। ইতিহাসের এক জ্বলন্ত সাক্ষী এ মহরম মাস। ইসলামের অনেক ঐতিহাসিক ঘটনার সূত্রপাত হয় এ মাসে।

অনেকেই আশুরার ঐতিহ্য বলতে রসুলুল্লাহ (স.)-এর প্রিয়তম দৌহিত্র হজরত হুসাইন (রা.)-এর শাহাদাত ও নবি পরিবারের কয়েক জন সম্মানিত সদস্যের রক্তে রঞ্জিত কারবালার ইতিহাসকেই বুঝে থাকে। বাস্তবতা হলো—হজরত হুসাইন (রা.)-এর মর্মান্তিক শাহাদতের ঘটনার অনেক আগে থেকেই আশুরা অনেক তাত্পর্যপূর্ণ ও রহস্যঘেরা দিন। কারণ কারবালার যুদ্ধ সংঘটিত হয় ৬১ হিজরির ১০ মহরম। তারও বহু আগে ১০ মহররম হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ও তার সাথিদের ফেরাউন ও তার সৈন্যদের থেকে মুক্তি পাওয়ার ঘটনা; যেখানে দরিয়ায় রাস্তা বানিয়ে আল্লাহ তাআলা তাদের নিরাপদে পৌঁছে দিয়েছেন। এই রাস্তা দিয়ে অতিক্রম করার সময় ফেরাউন ও তার সৈন্যদের দরিয়ায় ডুবিয়ে ধ্বংস করার ঘটনা ঘটে ১০ মহরম। হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ফেরাউনের হাত থেকে আশুরার দিন মুক্তি পান।

হিজরি সন গণনার ইতিহাস ও তাৎপর্য

রাসুল সা. ও তার সঙ্গীদের মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের ঐতিহাসিক ঘটনাকে স্মরণীয় করে রাখার জন্যই আরবি মহররম মাসকে হিজরি সনের প্রথম মাস ধরে সাল গণনার শুরু হয়। আল্লাহর নির্দেশ পালনার্থে তথা দ্বীনের স্বার্থে পবিত্র মক্কা থেকে মদিনায় রাসুল সা. ও তার সাহাবিদের হিজরতের বছর থেকেই হিজরি সনের সূচনা হয়।

খলিফা হজরত ওমর ফারুক রা. -এর শাসনামলে ১৬ হিজরি সনে প্রখ্যাত সাহাবি হজরত আবু মূসা আশআরি রা. ইরাক ও কুফার গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। একদা হজরত আবু মূসা আশআরি রা. খলিফা ওমর রা.-এর খেদমতে এ মর্মে পত্র লিখেন যে, আপনার পক্ষ থেকে পরামর্শ কিংবা নির্দেশ সংবলিত যেসব চিঠি আমাদের কাছে পৌঁছে তাতে দিন, মাস, কাল, তারিখ ইত্যাদি না থাকার কারণে কোন চিঠি কোন দিনের তা নিরূপণ করা আমাদের জন্য সম্ভব হয় না। এতে করে আমাদের নির্দেশ কার্যকর করতে সমস্যা হয়। চিঠির ধারাবাহিকতা না পেয়ে আমরা অনেক সময় বিব্রত বোধ করি।

হজরত আবু মূসা আশআরির চিঠি পেয়ে হজরত উমর রা. এ মর্মে পরামর্শসভার আহ্বান করেন যে, এখন থেকে একটি ইসলামী তারিখ প্রবর্তন করতে হবে। ওই পরামর্শসভায় হজরত উসমান রা., হজরত আলী রা. সহ বড় বড় অনেক সাহাবি উপস্থিত ছিলেন।

উপস্থিত সকলের পরামর্শ ও মতামতের ভিত্তিতে ওই সভায় ওমর রা. সিদ্ধান্ত দেন ইসলামী সন প্রবর্তনের। তবে কোন মাস থেকে বর্ষের সূচনা করা হবে তা নিয়ে পরস্পরের মধ্যে মতভেদ দেখা যায়।

কেউ কেউ এ মত পোষণ করেন- রাসূল সা.- এর জন্মের মাস রবিউল আওয়াল থেকে বর্ষ শুরু করার। আবার কেউ কেউ মত দেন রাসুলের ওফাতের মাস থেকে বর্ষ শুরু করা হোক। অন্যদের মতে, রাসূল সা.-এর হিজরতের মাস থেকে বর্ষ করা হোক।

এভাবে নানা মতামত আলোচিত হওয়ার পর হজরত উমর রা. বললেন, হুজুর সা.-এর জন্মের মাস থেকে হিজরি সনের গণনা শুরু করা যাবে না। কারণ খ্রিষ্টান সম্প্রদায় হজরত ঈসা আ.-এর জন্মের মাস থেকেই খ্রিষ্টাব্দের গণনা শুরু করেছিল। তাই রাসূল সা.-এর জন্মের মাস থেকে সূচনা করা হলে বাহ্যত খ্রিষ্টানদের অনুসরণ ও সদৃশতা হয়ে যায়, যা মুসলমানদের জন্য পরিত্যাজ্য।

এ সম্পর্কে রাসুল বলেন- ‘তোমরা ইহুদি-খ্রিষ্টানদের বিরোধিতা করো’ (বুখারি ও আবু দাউদ শরিফ)।

অপর দিকে, হুজুর সা.-এর ওফাত দিবসের মাস থেকেও গণনা শুরু করা যাবে না, কারণ এতে হুজুর সা.-এর মৃত্যু ব্যথা আমাদের মাঝে বারবার উত্থিত হবে। পাশাপাশি অজ্ঞ যুগের মৃত্যুও শোক পালনের ইসলামবিরোধী একটি কুপ্রথারই পুনরুজ্জীবন ঘটবে।

হজরত ওমর রা.-এর দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যের সঙ্গে হজরত উসমান রা. ও হজরত আলী রা. একবাক্যে সহমত পোষণ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওমর ফারুক রা. হিজরতের বছর থেকেই ইসলামী দিনপঞ্জি গণনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এই ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় হিজরতের ১৬ বছর পর ১০ জমাদিউল উলা ৬৩৮ খ্রিষ্টাব্দে।

হিজরি সন হচ্ছে মুসলমানদের সন। তাই প্রত্যেক মুসলমানের উচিত এ সনের অনুসরণ করা। এ ক্ষেত্রে উদাসীনতা করা উচিৎ নয়। ইসলামী ফিকাহবিদরা চান্দ্রবর্ষের হিসাব রাখাকে মুসলমানদের জন্য ফরজে কিফায়া বলেছেন। অর্থাৎ কেউ কেউ এর হিসাব রাখলে সবার দায়িত্ব আদায় হয়ে যাবে। কিন্তু সবাই যদি এ বিষয়ে উদাসীনতা দেখায় তাহলে প্রত্যেক মুসলমানকে গুনাহগার হতে হবে। চান্দ্রমাসের হিসাবের অনুসরণ নবী সা. ও খোলাফায়ে রাশেদার সুন্নত। যাদের অনুসরণ আমাদের জন্য পুণ্যময় ও কল্যাণকর আমল।