ঢাকা ১২:২৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি ::
আমাদের নিউজপোর্টালে আপনাকে স্বাগতম... সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে...

অনলাইনে মুঠোফোনের ফরমাশ, পেলেন গ্রেনেড

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:১৬:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১২৬ বার পড়া হয়েছে

পণ্য ও সেবা বেচাকেনার এখন বড় বাজার অনলাইন। খুঁটিনাটি কী পাওয়া যায় না সেখানে? তবে মাঝেমধ্যে অনলাইনের পণ্যের ফরমাশ করে কাউকে কাউকে পড়তে হয় বিপত্তিতে। যেমন মেক্সিকোর এক ব্যক্তি। অনলাইনে মুঠোফোন ফরমাশ করে তিনি পেয়েছেন একটি গ্রেনেড।

মেক্সিকোর গুয়ানাজুয়াতো শহরের লিওন এলাকায় গত সোমবার ঘটেছে এমন ঘটনা। যিনি মুঠোফোনের ফরমাশ করেছিলেন, তাঁর পরিচয় জানা যায়নি। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ফরমাশ অনুযায়ী ওই ব্যক্তির বাসায় একটি প্যাকেট পাঠানো হয়। তাঁর মা সেটি রান্নাঘরে তুলে রাখেন। পরে প্যাকেট খুলে তাতে পাওয়া যায় একটি গ্রেনেড।
প্যাকেটের মধ্যে গ্রেনেড দেখে চমকে ওঠেন ওই ব্যক্তি। ফোন করেন জরুরি সহায়তার জন্য। এর পরপরই তাঁর বাসায় পাঠিয়ে দেওয়া হয় বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলকে। তারা গ্রেনেডটি নিষ্ক্রিয় করে। ওই মোড়ক নিয়ে তদন্ত চলছে। তবে সেটি কে পাঠিয়েছে, এখনো তা স্পষ্ট নয়।

মেক্সিকোয় সাধারণ মানুষের কাছে গ্রেনেড রাখা অবৈধ। তবে দেশটিতে প্রায়ই অবৈধ অস্ত্র পাওয়া যায়। মেক্সিকোর মাদক পাচারকারীরা সহিংসতা চালাতে প্রায়ই রাস্তার পাশে বোমা পুঁতে রাখে। গত ছয় বছরে শুধু গুয়ানাজু্য়াতো শহর থেকে ৬০০টির বেশি বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

অনলাইনে মুঠোফোনের ফরমাশ, পেলেন গ্রেনেড

আপডেট সময় : ০৬:১৬:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

পণ্য ও সেবা বেচাকেনার এখন বড় বাজার অনলাইন। খুঁটিনাটি কী পাওয়া যায় না সেখানে? তবে মাঝেমধ্যে অনলাইনের পণ্যের ফরমাশ করে কাউকে কাউকে পড়তে হয় বিপত্তিতে। যেমন মেক্সিকোর এক ব্যক্তি। অনলাইনে মুঠোফোন ফরমাশ করে তিনি পেয়েছেন একটি গ্রেনেড।

মেক্সিকোর গুয়ানাজুয়াতো শহরের লিওন এলাকায় গত সোমবার ঘটেছে এমন ঘটনা। যিনি মুঠোফোনের ফরমাশ করেছিলেন, তাঁর পরিচয় জানা যায়নি। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ফরমাশ অনুযায়ী ওই ব্যক্তির বাসায় একটি প্যাকেট পাঠানো হয়। তাঁর মা সেটি রান্নাঘরে তুলে রাখেন। পরে প্যাকেট খুলে তাতে পাওয়া যায় একটি গ্রেনেড।
প্যাকেটের মধ্যে গ্রেনেড দেখে চমকে ওঠেন ওই ব্যক্তি। ফোন করেন জরুরি সহায়তার জন্য। এর পরপরই তাঁর বাসায় পাঠিয়ে দেওয়া হয় বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলকে। তারা গ্রেনেডটি নিষ্ক্রিয় করে। ওই মোড়ক নিয়ে তদন্ত চলছে। তবে সেটি কে পাঠিয়েছে, এখনো তা স্পষ্ট নয়।

মেক্সিকোয় সাধারণ মানুষের কাছে গ্রেনেড রাখা অবৈধ। তবে দেশটিতে প্রায়ই অবৈধ অস্ত্র পাওয়া যায়। মেক্সিকোর মাদক পাচারকারীরা সহিংসতা চালাতে প্রায়ই রাস্তার পাশে বোমা পুঁতে রাখে। গত ছয় বছরে শুধু গুয়ানাজু্য়াতো শহর থেকে ৬০০টির বেশি বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ।