ভক্তদের জন্য খেলা ছাড়তে পারছি না: আফ্রিদি

১৯৯৬ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকে'টে অ'ভিষেক আফ্রিদির। ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছেন ১৯৯৫ থেকে। পা'কিস্তানের হয়ে সবশেষ খেলেছেন ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। ২০১৮ সালে অবশ্য একটি ম্যাচে বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলেছেন লর্ডসে, ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্টেডিয়ামে নির্মাণে তহবিল সংগ্রহের সেই ম্যাচ পেয়েছিল আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির ম'র্যাদা।

পা'কিস্তানের হয়ে দুই দশকের ক্যারিয়ার শেষে তিনি খেলে যাচ্ছেন বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি লিগে। সময়ের সঙ্গে অবশ্য এই লিগগুলোতেও তার প্রতি দলগু'লির আগ্রহে ভাটা পড়েছে। আগের মতো সব লিগে তিনি কাঙ্ক্ষিত নন। তবে একেবারে শেষ হয়েও যায়নি। গত ডিসেম্বরে বিপিএলে খেলেছেন ঢাকা প্লাটুনের হয়ে। এরপর ফেব্রুয়ারি-মা'র্চে পা'কিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলেছেন মুলতান সুলতানসের হয়ে।

সম্প্রতি করো'নাভাই'রাসের আ'ক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন তিনি। পা'কিস্তানের একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইট'কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বললেন, খেলোয়াড়ী জীবনের শেষ দেখছেন না সহসাই।

“ সত্যি বললে, মন তো চায়, এখন থেমে যাই। কিন্তু ভক্তদের বড় চাওয়া, আমি যেন খেলে যাই, যতদিন ফিট আছি। ভক্তরা মাঠে দেখতে চান আমাকে। আমা'র বাড়ির লোকজন, পরিবারের সবাই বলে, ফিটনেস যেহেতু আছে, খেলা যেন চালিয়ে যাই।”

“ তো, যতদিন উপভোগ করছি… একটা ব্যাপার হলো, এখনও ক্রিকে'টের প্রতি আবেগ আমা'র তীব্র, এখনও ক্রিকে'টে থাকতে চাই, ক্রিকে'টের সঙ্গে চলতে চাই। আরও ২-১ বছর দেখব, ফিটনেস কেমন থাকে। যদি ফিট থাকি, দলের ওপর বোঝা না হয়ে যাই, তাহলে খেলে যাওয়াই উচিত। উপভোগ করাটাই আসল, জো'র করে খেলে যাব না।”

পা'কিস্তান দল এখন আছে ইংল্যান্ড সফরে। প্রধান কোচ মিসবাহ-উল-হক ছাড়াও এই দলের বোলিং কোচ হিসেবে আছেন ওয়াকার ইউনিস, এই সফরের ব্যাটিং কোচ ইউনিস খান, স্পিন কোচ মুশতাক আহমেদ। আফ্রিদির বিশ্বা'স, কোচিং স্টাফ এত সমৃদ্ধ বলে ইংল্যান্ডে ভালো করার সম্ভাবনা বেশি পা'কিস্তানের।

“ খুব ভালো কোচিং স্টাফের সাহায্য পাচ্ছে এই দল, যাদের ইংল্যান্ডে ভালো করার ব্যাপক অ'ভিজ্ঞতা আছে। আমা'র বিশ্বা'স, ইংল্যান্ডে ভালো করবে দল।”

আফ্রিদি কথা বললেন টেস্ট থেকে মোহাম্ম'দ আমিরের অবসর নিয়েও। যেটি নিয়ে বিতর্ক চলছেই, প্রবল সমালোচনার শিকারও হতে হয়েছে এই বাঁহাতি পেসারকে। তবে আফ্রিদির মতে, আমির ঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছেন।

“ আমা'র মনে হয়, আমির সঠিক কাজই করেছে টেস্ট ছেড়ে দিয়ে। সে নতুন বল সুইং করাতে পারে কিন্তু পুরোনো বলে ততটা কার্যকর নয়, গতি কম হওয়ার কারণে। সীমিত ওভা'রের ক্রিকে'টে এভাবে চলতে পারে, কিন্তু টেস্টে দ্বিতীয় বা তৃতীয় স্পেলে বোলিংয়ে ফিরতে হয়। এখানেই আমিরের কাজ ছিল কঠিন।”

Back to top button