করোনার মধ্যেই রাঙ্গামাটিতে হামে ৫ শি'শুর মৃ'ত্যু, আক্রান্ত শতাধিক

প্রাণঘাতী করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে সাজেক ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী দুর্গম এলাকায় গত এক সপ্তাহে হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে পাঁচ শি'শুর মৃ'ত্যু হয়েছে। এ ছাড়া শতাধিক শি'শু হামে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেলশন চাকমা যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সাজেক ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সীমান্তবর্তী তিনটি গ্রামে গত কয়েক দিনে হাম রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এই রোগে ইতিমধ্যে ৫ শি'শু মা'রা গেছে। বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে এবং সেখানে মেডিকেল টিম গিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছে।

এ ছাড়া ৭নং ও ৮নং ওয়ার্ডের লঙথিয়ানপাড়া, অরুণপাড়া, কমলাপুর, কাইশ্যোপাড়া এলাকায় এখনও প্রায় শতাধিক শি'শু হামে আক্রান্ত বলে জানান নেলশন চাকমা।

এ বিষয়ে উপজে'লা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মক'র্তা ইসতেখার আহম্ম'দ যুগান্তরকে বলেন, সাজেকের দুর্গম এলাকায় হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রথম শি'শুকন্যার মৃ'ত্যুর খবর পেয়ে আমাদের একটি মেডিকেল টিম সেখানে চিকিৎসা দিচ্ছে।

তিনি বলেন, আক্রান্তদের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানোর পর নিশ্চিত হওয়া গেছে তাদের সবার হাম হয়েছে।

বাঘাইছড়ি উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা আহসান হাবিব জিতু যুগান্তরকে জানান, গত কয়েক দিন ধরে দুর্গম ও সীমান্তবর্তী শিয়ালদহ এলাকার তিনটি গ্রামের শি'শুদের হামে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাচ্ছিলাম। বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগকে জানানোর সঙ্গে সঙ্গেই তারা পদক্ষেপ নিয়েছে। আজ শুক্রবার আরেকটি মেডিকেল টিম সেখানে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

তবে আক্রান্ত রোগীরা নিয়মিত মেডিসিন সেবন করছে না এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য হাস*পাতালে আনতে চাইলেও তারা আসছে না বলে জানান ইউএনও।

‘তার পরও বিজিবির দুটি মেডিকেল টিম সেখানে পাঠিয়েছি। পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রয়োজনে আক্রান্ত শি'শুদের দীঘিনালা অথবা খাগড়াছড়ি সদর হাস*পাতালে নিয়ে যাওয়া হবে।’